দেয়ালে দেয়ালে এভ্রিলের সৌন্দর্য কাহন

জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল- সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রমাগত ছড়িয়ে দিচ্ছেন নিজের সৌন্দর্য কাহন। সব ধরনের পোশাকেই যে তিনি অনন্য এটাকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করছেন। তবে নেটিজেনরা বিষয়টিকে বেশ ইতিবাচকভাবেই গ্রহণ করছে বলেই মনে হচ্ছে। ক’দিন আগে একটি ‘মেকওভার’ ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন এই সুন্দরী তন্বী। সামান্য ফেসবুকের ওই ভিডিও এখন সাত লাখ দর্শনের দোরগোড়ায়।

জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে পোস্ট করে সৌন্দর্য নিয়ে চলছে চর্চা। তাই বলাই যায় এভ্রিলের ফেসবুকে নেটিজেনদের চক্ষু তীক্ষ্মভাবেই আটকে থাকে। না হলে সোশ্যাল মিডিয়ার অজস্র প্ল্যাটফরমের দেয়ালে দেয়ালে এভ্রিলের সৌন্দর্য কথন এভাবে ছড়াবে কেন? সাম্প্রতিক সময়ে ছড়িয়ে পড়া ওই ভিডিওতে দেখা যায় মেকআপ আর্টিস্ট মনির এই সুন্দরীকে সাজিয়ে তুলছেন, ধীরে ধীরে বিকশিত হচ্ছে সৌন্দর্য, রূপ, লাবণ্য। ধীরে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল একজন আধুনিকা বধূ।

বলা যায় ভিডিওর শুরু থেকে সাজসজ্জার পুরো প্রক্রিয়াটুকুই নজর কেড়েছে সকলের। কিন্তু কেন এই বিয়ের সজ্জা? এই বিষয়ে কালের কণ্ঠকে জানালেন মেকআপ আর্টিস্ট মনির হোসেন। তিনি বলেন, ‘এটা আমার প্রতিষ্ঠানের জন্য করা হয়েছে। আমি বলেছিলাম তাঁকে, তিনি রাজি হয়েছেন। আমি যেহেতু ব্রাইডল মেকআপের কাজ করছি। সেজন্য এরকম একটা মডেল ফটশুটের দরকার ছিল।’

উল্লেখ, মনির একজন নামী মেকআপ আর্টিস্ট। দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে তিনি বলিউডেরও কিছু কাজ করেছেন। সানি লিওনেরও মেক আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করার কথা ছিল। পরে অজ্ঞাত কারণে সেটা হয়ে ওঠেনি।

সম্প্রতি সদরঘাটে বেশকিছু ছবি তুলেছেন এভ্রিল। এই ছবিগুলোর মাঝে এমন ভিন্নতা রয়েছে যার কারণে নেটিজেনরা বিভিন্ন গ্রুপে পোস্ট করে বলছেন, ‘মনে হচ্ছে না এসব স্টাইল বাংলাদেশের কোনো মেয়ের।’

জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল (৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৯০ তারিখে জন্ম) একজন বাংলাদেশি মডেল, সুন্দরী প্রতিযোগিতায় শিরোপাজয়ী, যাকে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৭ এর মুকুট পরানো হয়েছিল। যদিও ২০১৭ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ মিস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার ফাইনালের দিন, তাকে মিস বাংলাদেশ ঘোষণা করা হয়েছিল, তবুও এটি সমালোচিত হয়েছিল কারণ তিনি বিচারকদের বিচারে সেরা না হলেও, আয়োজকরা তাকে বিজয়ী ঘোষণা করেন।

এছাড়াও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণণের সময় তিনি তার বয়স লুকিয়ে রেখেছেন এবং তিনি বৈবাহিক অবস্থাও গোপন করেছেন। যদিও মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ এর নিয়ম অনুসারে প্রতিযোগীকে অবিবাহিত থাকতে হয়। এ কারণে আয়োজকরা বিজয়ী ঘোষণার ৪ দিন পর ৪ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে তাকে ‘অযোগ্য’ ঘোষণা করেন এবং জেসিয়া ইসলামকে নতুন মিস বাংলাদেশ ২০১৭ ঘোষণা করেন।