অবশেষে ব্রাজিলে ফিরলেন আলভেস

কোপা আমেরিকার সেরা খেলোয়াড় তিনি। জিতেছেন ফুটবল ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৪০ শিরোপা। এর পরও দানি আলভেসকে নিয়ে আগ্রহ দেখাচ্ছিল না ইউরোপিয়ান কোনো ক্লাব। শেষ পর্যন্ত নতুন ক্লাবের খোঁজে ইনস্টাগ্রামে প্রকাশ করেন নিজের জীবনবৃত্তান্ত। আর একটা ‘চাকরি’ চেয়ে জানিয়েছিলেন খেলার আকুতি, ‘কারো নজরে কি এই জীবনবৃত্তান্ত পড়বে? একটা চাকরি চাই আমি।’

অবশেষে ‘চাকরিটা’ পেয়ে গেছেন ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক। ইউরোপিয়ান কোনো ক্লাব নয়, ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী দল সাও পাওলোর সঙ্গে তিন বছরের চুক্তি করেছেন আলভেস। ১৭ বছর ইউরোপের সেরা ক্লাবগুলোতে খেলে পড়ন্ত বেলায় ফিরলেন দেশের ফুটবলে। এ নিয়ে আবেগী তিনি, ‘আমি যেকোনো ক্লাব বেছে নিতে পারতাম। ব্রাজিলে খেলাটা বেশি পছন্দের আমার কাছে। নিজের দেশ, পরিচিত মানুষ, প্রিয় ক্লাব—যা খুব ভালোবাসি সেখানেই ফিরে এলাম।’ ব্রাজিলিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে সাও পাওলো এখন পাঁচ নম্বরে। আলভেস কি পারবেন তাদের শিরোপার কক্ষে ফেরাতে?

ব্রাজিলের আরেক তারকা নেইমারের ভাগ্য এখনো ঠিক হয়নি। পিএসজিতে আর থাকতে চান না বিশ্বের সবচেয়ে দামি এই ফুটবলার। তাঁকে পেতে মোটা অঙ্কের প্রস্তাবও দিচ্ছে না নামি ক্লাবগুলো। এমন সময়ে পিএসজি সতীর্থ কিলিয়ান এমবাপ্পে পাশে চাইলেন নেইমারকে। অনুরোধ জানালেন নতুন মৌসুমে পিএসজিতে থেকে যাওয়ার, ‘শ্রদ্ধা আর সততা নিয়ে কথা বলেছি নেইমারের সঙ্গে। তাকে বলেছি আমাদের সঙ্গে থাকতে। সে জানে এই পরিস্থিতিতে আমি কী ভাবছি। আমি নেইমারের প্রশংসা করি, শ্রদ্ধাও করি তাকে।’

এমবাপ্পের মতো ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো অবশ্য জুভেন্টাসে থেকে যেতে বলেননি পাউলো দিবালাকে। এই পর্তুগিজ আসার পর জুভেন্টাসের একাদশে জায়গা নড়বড়ে হয়ে পড়েছে দিবালার। তাঁকে ম্যানইউতে দিয়ে ইতালিয়ান ক্লাবটি চায় রোমেলু লুকাকুকে পেতে। ম্যানইউরও পছন্দ দিবালা। তাই জুভেন্টাস খেলোয়াড়দের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে দিবালাকে ম্যানইউতে যাওয়ার পরামর্শ রোনালদোর।