অঙ্কিতাই চ্যাম্পিয়ন, বিমর্ষ নোবেল

জি-বাংলার সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো’ ‘সা রে গা মা পা’র চ্যাম্পিয়ন হলেন পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণার মেয়ে অঙ্কিতা ভট্টাচার্য, গ্রান্ড ফিনালে বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিযোগী মাঈনুল আহসান নোবেল যৌথভাবে দ্বিতীয় রানারআপ হয়েছেন।

চ্যাম্পিয়নের পরে প্রথম রানার আপ দুইজন। মানে এই মোট তিনজনের পরে চলে গেলেন তিনি। এরপরে যে স্থান সেখানে শুধু নোবেলই ছিলেন না, ছিলেন আরো একজন।

রবিবার রাতে ফলাফল পাওয়া গেল। প্রথম হয়েছেন অঙ্কিতা। যৌথভাবে ১ম রানারআপ গৌরব ও স্নিগ্ধজিৎ এবং ২য় রানারআপ হয়েছেন প্রীতম ও মাঈনুল আহসান। সা রে গা মা পা-এর এবারের চূড়ান্ত পর্যায়ে যাঁরা নির্বাচিত ছিলেন সুমন মজুমদার, অঙ্কিতা ভট্টাচার্য, গৌরব সরকার, নোবেল, স্নিগ্ধজিৎ ভৌমিক, প্রীতম রায়। বিজয়ী অঙ্কিতা পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন ২ লাখ রুপি ও একটি নতুন গাড়ি।

চ্যাম্পিয়নের মুহূর্ত ঘোষণার সময় বেশ নার্ভাস দেখাচ্ছিল অঙ্কিতাকে। উপস্থাপক যীশুও নাম ঘোষণার সময় কম নাটক করছিলেন না। অবশ্য এর আগেই বাংলাদেশিদের হৃদয় ভেঙে গেছে। কারণ নোবেল দ্বিতীয় রানার আপ হয়ে পেছনে দাঁড়িয়ে আছেন। বাংলাদেশের আর কোনো মানুষই যেন সারেগামাপা দেখে আনন্দ পাচ্ছিলেন না।

দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী অঙ্কিতা সাত বছর ধরে গান শিখেছেন রথীজিৎ ভট্টাচার্যের কাছে। তার পছন্দের শিল্পী শ্রেয়া ঘোষাল, অরিজিৎ সিং। আর আদর্শ মানেন আশা ভোঁসলেকে। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন যীশু সেনগুপ্ত। বিচারক ছিলেন মোনালী ঠাকুর, শান্তনু মৈত্র, শ্রীকান্ত আচার্য।

গত বছর সেপ্টেম্বরে জি বাংলায় শুরু হয় ‘সা রে গা মা পা ২০১৮-১৯’ প্রতিযোগিতা। ভারত থেকে নির্বাচিত ৪৮ জন প্রতিযোগী অংশ নেন। প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে অংশ নেন অবন্তি সিঁথি, তানজীম শরীফ, রোমানা ইতি, মেজবা বাপ্পী, আতিয়া আনিসা, মন্টি সিনহা ও মাঈনুল আহসান নোবেল। বাকিরা নানা ধাপে ছিটকে গেলেও গোপালগঞ্জের নোবেল জায়গা করে নেন চূড়ান্তপর্বে।