নয়ন বন্ড একদিনে তৈরি হয়নি, তাকে কেউ না কেউ লালন করেছে

বরগুনার সন্ত্রাসী নয়ন বন্ড একদিনে তৈরি হয়নি। তাকে কেউ না কেউ লালন-পালন করে সন্ত্রাসী বানিয়েছে। রিফাত হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতারের অগ্রগতির বিষয়টি রাষ্ট্রপক্ষ থেকে অবহিত করার পর বিচারপতি এসআরএম নাজমূল আহসান ও বিচারপতি কেএএম কামরুল কাদেরের ডিভিশন বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার এ মন্তব্য করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের ডেপুনি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাসার বরগুনার জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের প্রতিবেদন আদালতে তুলে ধরে বলেন, এই মামলার এজাহার নামীয় ১২ আসামির মধ্যে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এজাহারের বাইরেও সন্দেহজনক কয়েকজনকে গ্রেফতার করে তাদের জিজ্ঞাসবাদ চলছে। এ মামলার মূল আসামি যিনি নয়ন বন্ড নামে পরিচিত তাকে ধরার সময় গুলিতে মারা গেছে।

এ পর্যায়ে আদালত বলেন, সে কিভাবে মারা গেল। ডেপুনি অ্যাটর্নি জেনারেল বাসার বলেন, পুলিশের কাছে গোপন সংবাদ ছিল- রিফাত হত্যা মামলার আসামিরা লুকিয়ে আছে। পুলিশ তাদের ধরতে যায়। তখন তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আত্মরক্ষায় পাল্টা ‍গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে গুলিতে একজন মারা যায়। পরে এলাকাবাসী তাকে নয়ন বন্ড বলে চিহ্নিত করে। এ ঘটনায় হত্যা ও অস্ত্র মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ পর্যায়ে আদালত বলেন, আমরা বিচার বহির্ভুত হত্যাকাণ্ড পছন্দ করি না। একই সঙ্গে আদালত রিফাত হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকার প্রশংসা করেন।