ধুঁকে ধুঁকে চলছে শেকৃবির পরিবহন সেবা

পরিবহন সংকটে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শিক্ষার্থীদের প্রতিনিয়তই ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। পরিস্থিতি এতটাই নাজুক যে অধিকাংশ শিক্ষার্থীই এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে যাতায়াত করেন নিজ দায়িত্বে।

এমনকি শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসের খোঁজই রাখেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বলেছেন, শিক্ষার্থীদের পরিবহন-সংকটের বিষয়টিকে আমরা গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছি।

ইতিমধ্যে আমরা একটি বাস কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে স্থায়ীভাবে পরিবহন সংকট দূর করতে কিছুটা সময় লাগবে।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা প্রায় চার হাজার এবং শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় এক হাজার। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির পরিবহন সেবা দেয়ার জন্য ৪টি বাস, ১৪টি মাইক্রোবাস ও ১টি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে।

৪টি বাসের মধ্যে ২টি বাস বিশ্ববিদ্যালয়টি ইন্সটিটিউট থাকাকালের। আর ২টি বাস ২০০৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়কে উপহার দেন।

এ ৪টি বাসের মধ্যে ১টি বাস ব্যবহার করা হয় শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্তানদের স্কুলে আনা-নেওয়া কাজে।

বাকি ৩টির মধ্যে ১টি বাস অধিকাংশ সময় ইঞ্জিন বিকল হয়ে পড়ে থাকে। মূলত বাকি ২টি বাস ব্যবহারের করা হয় শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার কাজে।

সরেজমিন দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত সব বাসই ফিটনেসবিহীন। রংচটা এ বাসগুলোর ভেতরের সব ফ্যান নষ্ট। ভাঙা অবস্থায় রয়েছে বেশ কয়েকটি বাসের জানালা।

বসার সিটগুলোর অবস্থাও নড়বড়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুবায়াতুল জান্নাত বলেন, দুটি বাস শুধু মিরপুর আর মতিঝিল এ দুই রুটে চলে। অথচ নগরীর অন্য প্রান্ত থেকেও শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে।

জানতে চাইলে পরিবহন পুলের কার্যনির্বাহী ইঞ্জিনিয়ার মো. মোমিনুল এহসান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন খাতে কোনো অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা নেই। তবে আমাদের কিছু জনবল সংকট রয়েছে। আর যান্ত্রিক জিনিস এক সময় ভালো থাকে, এক সময় খারাপ থাকে।

তবে কখনও কোনো সমস্যা দেখা দিলে সেটি সঙ্গে সঙ্গে সমাধানের চেষ্টা করা হয়। শিক্ষার্থীরা যাতে নির্বিঘ্নে ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়া করতে পারে সেজন্য আমাদের চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই।

ইতিমধ্যে ৫২ সিটের একটি বাস ও মালামাল পরিবহনের জন্য একটি পিকআপ কেনার জন্য টেন্ডার হয়েছে। আশা করি এতে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ কিছুটা লাঘব হবে।