ভোট চলছে নওগাঁয়

আওয়ামী লীগের মো. শহীদুজ্জামান সরকার (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী এইচএম আখতারুল আলম (ট্রাক), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মেহেদী মাহমুদ রেজা (ঈগল) এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. তোফাজ্জল হোসেন (লাঙ্গল)

এক প্রার্থীর মৃত্যুতে পিছিয়ে যাওয়া দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নওগাঁ-২ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে।

সাড়ে তিন লাখ ভোটারের এ আসনের ১২৪টি কেন্দ্রে সোমবার সকাল ৮টায় ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা একটানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে।

নির্বাচনি কর্মকর্তারা জানান, সব কেন্দ্রেই নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, কোথাও কোনো গোলযোগের খবর নেই। তবে দিনের শুরুতে ভোটারের উপস্থিতি কম।

গত ৭ জানুয়ারি সারা দেশের ৩০০ আসনেই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মাঝপথে একজন প্রার্থী মারা যাওয়ায় নওগাঁ-২ আসনে ভোটের কার্যক্রম বাতিল হয়ে যায়। ৭ জানুয়ারি ভোট হয় ২৯৯ আসনে।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান বলেন, নওগাঁ-২ আসনে ভোট নির্বিঘ্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি তাদের আছে। ধামইরহাট ও পত্নীতলা উপজেলা নিয়ে নওগাঁ-২ আসন।

এ আসনের এমপি হতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চারজন প্রার্থী। তারা হলেন– আওয়ামী লীগের মো. শহীদুজ্জামান সরকার (নৌকা), জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট মো. তোফাজ্জল হোসেন (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী এইচএম আখতারুল আলম (ট্রাক) ও মো. মেহেদী মাহমুদ রেজা (ঈগল)।

নির্বাচনে ভোটার রয়েছে তিন লাখ ৫৬ হাজার ১৩২ জন। ১২৪টি কেন্দ্রে তাদের ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

সাধারণ ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় পুলিশ, আনসার, গ্রাম পুলিশ ও ব্যাটেলিয়ন আনসারসহ ১৬ জন সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। আর গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে নিয়োজিত রয়েছেন ১৭ জন করে নিরাপত্তা সদস্য।

রোববার দুপুরে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা ভোটের সরঞ্জাম বুঝে নেন। এরপর কড়া নিরাপত্তায় সেসব নিয়ে যাওয়া হয় নির্ধারিত কেন্দ্রে।

আর ব্যালট পেপার ও সিল সোমবার ভোর ৫টার মধ্যে কেন্দ্রে কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন জেলা রিটার্নিং অফিসার, জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা।

নির্বাচনী এলাকায় নিরাপত্তা নিশ্চিতে নিয়োজিত রয়েছে পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটেলিয়ন আনসারের ৩১টি মোবাইল এবং সাতটি স্ট্রাইকিং ফোর্স। দায়িত্ব পালন করছে র‌্যাবের চারটি টিম এবং ৮ প্লাটুন বিজিবি (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন)। এছাড়া নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটরাও দায়িত্ব পালন করছেন।

৭ জানুয়ারির দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২২৩টি, জাতীয় পার্টি ১১টি, জাসদ ১টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ১টি, কল্যাণ পার্টি ১টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬২টি আসন পেয়েছে। নতুন এমপিদের শপথ শেষে ইতোমধ্যে সংসদের অধিবেশনও শুরু হয়েছে।

ভোটের আট দিন আগে মারা যান নওগাঁ-২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল হক, তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। এরপর এ আসনে ভোটের কার্যক্রম বাতিল করা হয়। ৮ জানুয়ারি নওগাঁ-২ আসনের জন্য নতুন করে তফসিল ঘোষণা করা হয়।

নৌকার প্রার্থী শহীদুজ্জামান সরকার ১৯৯১ সালে বিএনপির প্রার্থী আব্দুল মান্নান কে হারিয়ে এ আসনের সংসদ সদস্য নিদর্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে শামসুজ্জোহা খান জোহা ১৯৯৬ সালে নির্বাচিত হন।

২০০৮ থেকে ২০১৪ ও ২০১৮ সালের তিনটি নির্বাচনে জিতে এ আসনের প্রতিনিধিত্ব করেছেন শহীদুজ্জামান সরকার। তবে এবার জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ড. ইঞ্জিনিয়ার আখতারুল আলম স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় তাদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস মিলছে।

এস/ভি নিউজ

পূর্বের খবরঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে
পরবর্তি খবরজনগণের রায় মেনে নেওয়ার আহ্বান জানালেন মালালা