বঙ্গবন্ধুকে মরণোত্তর ডিগ্রি দিতে ঢাবির বিশেষ সমাবর্তন মার্চে

51

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘ডক্টর অব লজ (অনারিজ কজা)’ (মরণোত্তর) ডিগ্রি প্রদানের জন্য আগামী মার্চ মাসে বিশেষ সমাবর্তন আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব নবাব চৌধুরী সিনেট ভবনে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে একাডেমিক কাউন্সিলে এই সিদ্ধান্ত হয়। আগামী সিন্ডিকেট সভায় এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। 

সভায় উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামালসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক ও বিভাগের প্রধানবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে কলা অনুষদ ডিন ও বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আব্দুল বাছির কালের কণ্ঠকে বলেন, সোমবার রাতে একাডেমিক কাউন্সিলের মিটিংয়ে মোটাদাগে তিনটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধুকে ডিগ্রি দেওয়া, প্লেজিয়ারিজম নিয়ে নীতিমালা অনুমোদন ও এ নিয়ে শিক্ষকদের মতামত চাওয়া হয়েছে এবং বন্ধের দিনগুলোতে সেমিনার-লাইব্রেরি খোলা রাখা। 

এর মধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিশেষ সমাবর্তনের দিন ও তারিখ ঠিক হয়েছে। মার্চের শেষ সপ্তাহে বিশেষ সমাবর্তনটি অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক (ডিজি) টেড্রোস আধানম গেব্রেইসাস বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। বিশেষ সমাবর্তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত থাকবেন বলে আশা রাখছি।

এছাড়াও গবেষণায় প্লেজিয়ারিজম ঠেকাতে ‘দ্য রুলস ফর দ্য প্রিভেনশন অব প্লেজিয়ারিজম’ শীর্ষক নীতিমালা নিয়ে আলোচনা এবং একাডেমিক কাউন্সিলে সংশোধন সাপেক্ষে এর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। শিক্ষকদের মতামত অনুযায়ী এই নীতিমালা চূড়ান্ত বাস্তবায়নের জন্য সিন্ডিকেটে যাবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। 

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রমে গতিশীলতা আনতে বন্ধের দিনগুলোও (শুক্র, শনিবার) বিভাগীয় সেমিনার লাইব্রেরিগুলো খোলা থাকবে। এবং বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে কাউকে পারিশ্রমিকের বিনিময়ে সেমিনার খোলা রাখা ও বন্ধ করার দায়িত্ব দেওয়া হবে। তবে শিক্ষার্থী কোনো বই ইস্যু করতে পারবে না বলেও জানান তিনি।