ওমানের দর্শনীয় স্থান: পর্ব-১

লেখক: রিদওয়ানুল করিম

225
নবী

পলিমাটির বাংলার মুসলিমদের চোখে উত্তপ্ত আরবদেশগুলো পায় পবিত্র ভুমির মর্যাদা। এর অন্যতম কারণ আরব ভূমিতে জন্মেছেন অনেক নবী-রাসূল এবং অধিকাংশের সমাধিও এসব অঞ্চলেই।

সুলতানাত ওমান, জাজিরাতুল আরবের গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ। ওমানের ভূমির মোট আয়তন ৩০৯,৫০০  বর্গ কি,মি (১১৯,৪৯৯ বর্গমাইল) এবং মোট উপকূলীয় রেখার পরিমাণ ২,০৯২ কি,মি।

ওমানের সাথে পাঁচটি দেশের বর্ডার রয়েছে তার মধ্যে ইউনাইটেড আরব আমিরাত, সৌদি আরব এবং ইয়েমেনের সাথে রয়েছে স্থলসীমা, আর ইরান এবং পাকিস্তানের সাথে রয়েছে সমুদ্রসীমা। ওমানে বেশ কয়েকজন নবী রাসুলের কবর বা মাজার রয়েছে। এদেশে রয়েছে হজরত ইমরান (আ.) এর ১২ মিটার লম্বা কবর, হজরত আইয়্যুব (আ.)-এর কবর ও পায়ের চিহ্ন, হজরত সালেহ বিন হুদ (আ.)-এর কবর, হজরত সালেহ (আ.) যেখান থেকে উট বের করে এনেছিলেন সে স্থান, হজরত ইউনুস (আ.) এর মাছের মুখ থেকে মুক্তির স্মারক স্থান, হজরত ওয়াস আল কুরুনি (রা.) কথিত ‘কবর’ যা পরে ভেঙে ফেলা হয়েছে। তাছাড়া ওমানের ধোফার অঞ্চলের মিরবাত নামক স্থানে রয়েছে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাহাবী মোহাম্মদ বিন আলি (রা:) এর কবর।

তবে আশ্চর্যজনকভাবে ওমানের মাস্কাটে কোন নবী-রাসূলের কবর নেই। উপরে উল্লেখিত সবগুলো নবী এবং সাহাবাদের কবর ওমানের রাজধানী মাস্কাট থেকে প্রায় ১,২০০ কিলোমিটার দূরের শহর সালালাহ ও তার আশেপাশে অবস্থিত।

লেখক: রিদওয়ানুল করিম
সাধারণ সম্পাদক – ওমান কেন্দ্রীয় কমিটি
হাডসন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস এসোসিয়েশন (হিবা)