কলকাতায় চলছে নিখিল ভারত বঙ্গসাহিত্য সম্মেলন ; বাংলাদেশ থেকে গিয়েছে ৫ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

258

নিউজডেস্ক: প্রতিনিধি দলে রয়েছেন কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর সৌমিত্র শিকড়, সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নজিবুল ইসলাম, ভি নিউজ সম্পাদক জয়ন্ত আচার্য্য, সাংবাদিক জিহাদুল ইসলাম। আগামীকাল উদযাপিত হবে বাংলাদেশ দিবস। এখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা উত্তর শিল্প সংস্কৃতি ও সাহিত্য নিয়ে আলোচনা হবে।

 

রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের অগাধ পান্ডিত্যের প্রমাণ আগেই পেয়েছিল বাংলা। সোমবারের ভাষণে ধরা পড়ল বাংলার সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পর্কে তাঁর ভালবাসার কথা। তিনি জানান, বাংলাতেও বই লেখার ইচ্ছে আছে তাঁর। বাংলার প্রতি ভালোবাসার কথা বলতে গিয়ে রাজ্যপাল বলেন, ‘আমি জানি, বাংলার মানুষ অনাহারে থেকেও এক টুকরো রুটির বদলে একটা বই কিনতে বেশি পছন্দ করেন’। একইসঙ্গে তাঁর সংযোজন, ‘বাংলায় এখন আর কেউ অনাহারে নেই’।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই পন্ডিত অজয় চক্রবর্তী স্তোত্রপাঠ অনুষ্ঠানটি আলাদা মাত্রা যোগ করে। এদিন শিল্পীর ৭০তম জন্মদিনও পালিত হয় মঞ্চে। স্বাগত ভাষণে সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির আচার্য তথা অভ্যর্থনা কমিটির সভাপতি সত্যম রায়চৌধুরী শুধুমাত্র বাংলা ভাষার টানে সকলে সমবেত হওয়ায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-সহ বহু মনিষীর স্মৃতিধন্য নিখিল ভারত বঙ্গ সাহিত্য সম্মেলনের প্রাক্তন সভাপতি প্রয়াত রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় ও সাধারণ সচিব জয়ন্ত ঘোষের অবদানের কথা মনে করিয়ে দেন তিনি। জানান, বাংলার বাইরে থেকে তো বটেই, বিদেশ থেকেও বহু প্রতিনিধি যোগ দিয়েছেন এই উৎসবে। সম্মেলনের সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য বলেন, সমাপ্তি অনুষ্ঠান থেকেই শান্তির বার্তা ছড়িয়ে পড়বে গোটা দুনিয়ায়। বৈজ্ঞানিক বিকাশ সিংহের মতে, বাঙালিই জানে ভাষার মর্যাদা কীভাবে রক্ষা করতে হয়। সৌরভ গাঙ্গুলি জানান, আজকাল পত্রিকা পড়েই তিনি জানতে পেরেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে এই সংগঠনের সম্পর্কের কথা। প্রদীপ ভট্টাচার্য ও সত্যম রায়চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানান তিনি। শর্মিলা ঠাকুর তাঁর ভাষণে নারী শিক্ষার প্রসারে সিস্টার নিবেদিতার ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন। সেইসঙ্গে করোনাকে ‘বাই বাই’ জানানোরও ডাক দেন তিনি। লোকসভার প্রাক্তন অধ্যক্ষ মীরা কুমার এদিন তাঁর ভাষণে নিজেকে ‘বাংলার পালিতা কন্যা’ বলে মন্তব্য করেন। জানান তাঁর বাবা জগজীবন রামের সঙ্গে বাংলার গভীর সম্পর্কের কথা। তাঁর মতে, বাংলা ভাষার ব্যপ্তি প্রশান্ত মহাসাগরের মতো। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সকলকে ধন্যবাদ জানান সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনিল ধর। এদিন নিখিল ভারত বঙ্গ সাহিত্য সম্মেলনের ওপর একটি তথ্যচিত্র ও একটি স্মরণিকাও প্রকাশ করা হয়। আয়োজন করা হয়েছে একটি চিত্র প্রদর্শনীরও। তিনদিন ধরে আলোচনা, সাহিত্যচর্চা ও সংস্কৃতি চর্চার আয়োজন করা হয়েছে। অংশ নিচ্ছেন বিশিষ্ট শিল্পীরা।