দুর্নীতির দায়ে আর্জেন্টিনার ভাইস প্রেসিডেন্টের কারাদণ্ড

115

আর্জেন্টিনার ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টিনা ফার্নান্দেজ দে কার্চনারকে দুর্নীতির দায়ে সাজা দেওয়া হয়েছে। ৬৯ বছর বয়সী ক্রিস্টিনাকে ছয় বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির আদালত।

বিবিসি জানিয়েছে, আর্জেন্টিনার ইতিহাসে তিনিই ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় কারাদণ্ড পাওয়া প্রথম কোনো ভাইস প্রেসিডেন্ট। আদালতের রায়ে দোষী সাব্যস্ত হলেও কংগ্রেশনাল দায়মুক্তির কারণে তাঁকে কারাগারে যেতে হবে না।

আর্জেন্টিনার ভাইস প্রেসিডেন্ট হওয়ায় সুবিধাটি পাচ্ছেন তিনি।

ক্রিস্টিনার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, ২০০৭ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত নিজের শক্তিশালী ঘাঁটি পাতাগোনিয়া অঞ্চলে সরকারি কাজ প্রদানে অনিয়ম করেছেন। নিজের বন্ধুকে সরকারি নির্মাণকাজ দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে অবৈধভাবে পাইয়ে দিয়েছেন তিনি।  

বিষয়টি জানাজানি হতেই তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। প্রসিকিউটররা তাঁকে ১২ বছরের কারাদণ্ড এবং রাজনীতি থেকে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করার দাবি জানান। অভিযোগ প্রমাণ হলেও মঙ্গলবার তাঁকে ছয় বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত।

অবশ্য ক্রিস্টিনার দাবি, তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ও কারাদণ্ড রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অংশ। বিচার বিভাগীয় মাফিয়ার ষড়যন্ত্রের শিকার হওয়ার অভিযোগ করেছেন তিনি। রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের কথাও জানিয়েছেন।

ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল শেষ না হওয়া পর্যন্ত ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।

তাকে একবার গুলি করে হত্যার চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু বন্দুকধারীর অস্ত্র ওই সময় কাজ করেনি। সে কারণে প্রাণে বেঁচে যান ক্রিস্টিনা।

সূত্র : বিবিসি