জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চলে ৪০ কম্পানি বিনিয়োগে আগ্রহী

111

* জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চলে সরকার ও জাপানের শেয়ারের মধ্যে বেজার শেয়ার ২৪%, জাইকার ১৫% এবং সুমিতমো করপোরেশনের ৬১% ♦ ১৫০ কোটি ডলার বা ১৫ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হবে এই বিশেষ অঞ্চলে*

‘ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশ ৩০০ কোটিরও বেশি মানুষের বাজার হতে পারে। জাপান বাংলাদেশের বন্ধু হিসেবে সব সময় পাশে থাকে। জাপানের পাশাপাশি ভারত, চীন, সৌদি আরবসহ আরো অনেক দেশ বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমাদের অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিদেশি বিনিয়োগ আসছে।

যারা আসবে তারা যেভাবে চায় সেভাবেই অর্থনৈতিক অঞ্চলে সুযোগ দেব। তারা যেভাবে উন্নয়ন করতে চায়, করতে পারবে। ’ নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার পাঁচরুখি এলাকায় বাংলাদেশ স্পেশাল ইকোনমিক জোন (বাংলাদেশে জাপানিজ অর্থনৈতিক অঞ্চল) উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথি হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিশেষ এই অর্থনৈতিক অঞ্চলটি উদ্বোধন করেন তিনি। জোনের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু হলে সেখানে এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অনুষ্ঠানে আড়াইহাজার প্রান্ত থেকে বক্তব্য দেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি, জাপানের সুমিতমো করপোরেশনের প্র্রেসিডেন্ট ও সিইও মাসাইউকি হিওদো, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ, পুলিশ সুপার মো. গোলাম মোস্তফা রাসেল প্রমুখ।

বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘নিজস্ব মার্কেটের পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে আমাদের বড় বাজার রয়েছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সঙ্গেও আমাদের যোগাযোগ উন্নত করেছি। তাদের সঙ্গে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। তাই সব দিক বিবেচনায় বিনিয়োগের সবচেয়ে উত্তম জায়গা বাংলাদেশ। প্রায় ১৭ কোটি মানুষ আমাদের নিজেদেরই। আর পূর্ব দিকে ৫০ কোটি, উত্তর দিকে ১৫০ কোটি, পশ্চিমে ১০০ কোটি মানুষের বাজার এখানে। যোগাযোগ অবকাঠামো বৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশ থেকে পণ্য পরিবহনের বিরাট সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে যাঁরা বিনিয়োগ করবেন, নিজেরা সমৃদ্ধ হবেন, আমাদের দেশেরও উন্নতি হবে। ’

শেখ হাসিনা আরো বলেন, ‘বিনিয়োগকারীদের বিভিন্ন সেবা ও পরিসেবা অনুমোদনে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করা হয়েছে। কিছু জটিলতা থাকলেও আমরা সেগুলো নিরসনের চেষ্টা করছি। ’

জানা গেছে, আড়াইহাজারে অর্থনৈতিক অঞ্চলটি স্থাপন করতে এক হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ৫০০ একর জমির ভূমি উন্নয়নকাজ শেষ হয়েছে। এই ৫০০ একরের মধ্যে ১৮০ একর জমি বাংলাদেশ স্পেশাল ইকোনমিক জোনকে হস্তান্তর করা হয়েছে। অর্থনৈতিক অঞ্চলটিতে ১৫০ কোটি ডলার বিনিয়োগ হবে। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ ১৫ হাজার কোটি টাকা। ’

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন জানান, অর্থনৈতিক অঞ্চলটিতে বিনিয়োগে এরই মধ্যে চুক্তি সই হয়েছে বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান সিঙ্গার ও জার্মানির কম্পানি রুডলফের সঙ্গে। আরো ৪০টি কম্পানি বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে। যার মধ্যে ৩০টি কম্পানি জাপানের। বাকি ১০টি অন্য দেশের। তিনি জানান, জাপানিজ অর্থনৈতিক অঞ্চলে সরকার ও জাপানের শেয়ারের মধ্যে বেজার শেয়ার থাকছে ২৪ শতাংশ, জাইকার ১৫ শতাংশ এবং সুমিতমো করপোরেশনের ৬১ শতাংশ। আগামী এক বছরের মধ্যে সেখানে কারখানা থেকে উৎপাদন শুরু হবে বলে জানান বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান।