চলতি মাসেই ২টি শৈত্যপ্রবাহ

206

সারা দেশে দিনের ও রাতের তাপমাত্রা ধারাবাহিকভাবে কমতে শুরু করেছে। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, পরবর্তী পাঁচ দিনে আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। তবে আবহাওয়াবিদরা বলছেন, তাপমাত্রার পরিবর্তন হলেও সর্বোচ্চ ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমবেশি হতে পারে। উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের কোনো সম্ভাবনা নেই।

উচ্চ চাপের বলয় বর্তমানে বিহার ও এর আশপাশে অবস্থান করছে। বিহারের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গ এবং তার পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। উচ্চ চাপের বলয়ের কারণে দেশে উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে। উচ্চ চাপের বলয় বাংলাদেশের দিকে যতই আসছে, উত্তর-পশ্চিমমুখী বাতাসের কারণে ততই ঠাণ্ডা বাড়ছে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, বিহার, দক্ষিণবঙ্গ, দিল্লি, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের বাতাস তুলনামূলক ঠাণ্ডা হয়।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়, আজ শনিবার সারা দেশে দিনের ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে। ভোরের দিকে দেশের কোথাও কোথাও হালকা কুয়াশা পড়তে পারে। আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে।

আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক কালের কণ্ঠকে বলেন, ধারাবাহিকভাবে তাপমাত্রা হ্রাস পাচ্ছে। প্রায় তিন দিন পর্যন্ত তাপমাত্রা উল্লেখযোগ্যভাবে কমার সম্ভাবনা নেই। তবে বিচ্ছিন্নভাবে কয়েকটি উপজেলার তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত নামতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে টেকনাফ, তেঁতুলিয়া, শ্রীমঙ্গল এবং নওগাঁর বদলগাছি।

এদিকে চলতি মাসে দুটি মৃদু শৈত্যপ্রবাহের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তাপমাত্রা ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসতে পারে বলে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে মল্লিক জানান, এটি উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল, বিশেষ করে রাজশাহী, দিনাজপুর, লালমনিরহাট, ময়মনসিংহ, শ্রীমঙ্গল, যশোর, কুষ্টিয়া, পঞ্চগড় থেকে টাঙ্গাইল পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে। এ তাপমাত্রা সর্বোচ্চ দুই দিন স্থায়ী হতে পারে।

গতকাল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ১২.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা সীতাকুণ্ডে ৩১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত তিন দিনে সারা দেশের তাপমাত্রা ১৪ থেকে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত ওঠানামা করেছে।