রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথকে শেষ বিদায় জানিয়েছে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ

 

ভিনিউজ ডেস্ক- রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথকে যথাযোগ্য মর্যাদায় সমাহিত করা হয়েছে। সোমবার লন্ডনে জনাকীর্ণ রাস্তায় ঐতিহাসিক জমকালো রাষ্ট্রীয় অন্তেষ্টিক্রিয়ায় সারা বিশ্বের নেতারা অংশ নেন।
বৃটিশ ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় দেশ শাসনকারী রানী গত ৮ সেপ্টেম্বর বালমোরালে ৯৬ বছর বয়সে মারা যান
ব্রিটেনে শেষ রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৬৫ সালে যুদ্ধকালীন প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল মারা যাওয়ার পর। টেমস নদী দিয়ে রানীর কফিনটি বহন করার সময় তাকে সম্মান জানাতে ক্রেণগুলোকে নত করা হয়েছিল।
অনেক সাধারণ মানুষ রাষ্ট্রীয় অন্তেষ্টিক্রিয়ায় প্রত্যক্ষ করতে এবং তাদের শেষ শ্রদ্ধা জানাতে। গত কয়েক দিন ধরে অপেক্ষা করেছে।
অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার পরে, রাণীর পতাকাযুক্ত কফিন ইম্পেরিয়াল স্টেট ক্রাউন উইন্ডসর ক্যাসেলে নিয়ে যাওয়া হয়।
তাকে তার বাবা রাজা ষষ্ঠ জর্জ, তার মা রানী এলিজাবেথ এবং বোন রাজকুমারী মার্গারেটের সমাধির পাশে বরাবর সমাহিত করা হয়েছে।
তার স্বামী প্রিন্স ফিলিপের কফিন যিনি গত বছর ৯৯ বছর বয়সে মারা গেছেন সেটি তার সমাধির পাশে স্থানান্তর করা হবে।
সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, জাপানের সম্রাট নারুহিতোর থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানসহ দুই হাজারের বেশি মানুষ ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবেতে যোগ দেন।
রানীর বড় ছেলে এবং উত্তরসূরি রাজা তৃতীয় চার্লস (৭৩) শোক যাত্রায় নেতৃত্ব দেন। তার তিন ভাইবোন এবং তার উত্তরাধিকারী প্রিন্স উইলিয়াম তাদের সাথে যোগ দেন।
রবিবার চার্লস বলেছেন, তিনি এবং তার স্ত্রী, কুইন কনসর্ট ক্যামিলা সমবেদনা এবং শোক বার্তা পেয়ে “গভীরভাবে অভিভূত।”
তিনি আরো বলেন, আমরা সবাই আমাদের শেষ বিদায় জানাতে প্রস্তুত। আমি কেবল সকলকে ধন্যবাদ দিতে চাই।
রানীর মৃত্যুর পর রাজ পরিবারের দুই সদস্য রানীর দ্বিতীয় ছেলে প্রিন্স অ্যান্ড্রু এবং চার্লসের ছোট ছেলে প্রিন্স হ্যারি সাময়িকভাবে রাজকীয় আনুষ্ঠিকতায় ফিরে এসেছেন।
রাষ্ট্রীয় অন্তেষ্টিক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাসও থাকবেন, যাকে রানী তার মৃত্যুর মাত্র দুই দিন আগে ১৫ তম ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন।
ট্রাসের পূর্বসূরিরা এবং তার সমকক্ষরা এবং ব্রিটেনের বাইরে ১৪টি কমনওয়েলথ দেশের প্রতিনিধিরা যেখানে যোগ দেন।
রানীর মৃত্যুতে তার ৭০ বছরের রাজত্বকালে ব্রিটেনে তার রাজত্ব এবং অতীতের উত্তরাধিকার, এর বর্তমান অবস্থা এবং ভবিষ্যতে কী হতে পারে সেইসাথে আজীবন সেবা ও কর্তব্যের মূল্যবোধের প্রতিফলন ঘটেছে।
প্রায় ৬,০০০ সামরিক কর্মী এই গৌরবময় রাষ্ট্রীয় অন্তেষ্টিক্রিয়ায় অংশ নিতে প্রস্তুতি নিয়েছে।
ব্রিটেনের সর্বোচ্চ পদমর্যাদার সামরিক কর্মকর্তা, চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ অ্যাডমিরাল টনি রাদাকিন, এটিকে “রানির জন্য আমাদের শেষ কর্তব্য” বলে অভিহিত করেছেন।
স্থানীয় সময় সকাল ১১:০০ টায় শুরু হওয়া রাষ্ট্রীয় অন্তেষ্টিক্রিয়া লন্ডনের সর্বকালের সবচেয়ে কড়া পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থার অধীনে সংঘটিত হয়েছে।
দুই মিনিট নীরবতা পাল এবং জাতীয় সঙ্গীত “গড সেভ দ্য কিং” বাজানোর আগে প্রায় এক ঘণ্টা লাস্ট পোস্ট পরিবেশন করা হয়।
ইয়র্কের প্রাক্তন আর্চবিশপ জন সেন্টামু বলেন, ১৬ শতকে রাজা হেনরি অষ্টম দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ইংল্যান্ডের প্রোটেস্ট্যান্ট চার্চের, প্রধান রানী সাদামাটা বিদায় চাননি।
যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের ওয়েস্টমিনস্টার হলের দরজাগুলো সকাল ৬:৩০ এর কিছু পরে বন্ধ করে দেওয়া হয়। কফিনটি রয়্যাল নেভির সদস্যরা অ্যাবেতে নিয়ে যায়।
পার্লামেন্টের হাউসের প্রান্তে এলিজাবেথ টাওয়ারের শীর্ষে বিগ বেন ঘণ্টা বাজায় এবং তোপধ্বনি করা হয়। টেলিভিশনে বিপুল সংখক দর্শক বিশ্বব্যাপী শেষকৃত্য অনুষ্ঠান দেখেছে।