ভারতরত্ন ড. ভুপেন হাজারিকা পুরস্কার পেলেন সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির আচার্য সত্যম রায়চৌধুরী

 

গুয়াহাটি, ৮ সেপ্টেম্বর

ভিনিউজ – ভারত ও বাংলাদেশে সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য এবছর ‘ভারতরত্ন ড. ভুপেন হাজারিকা ব্যতিক্রম আন্তর্জাতিক সমন্বয় বঁটা (পুরস্কার)’ পেলেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির আচার্য সত্যম রায়চৌধুরী। এই উপলক্ষে এদিন গুয়াহাটিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অসমিয়াদের সঙ্গে বাঙালির আত্মিক সুসম্পর্কের কথা বলেন তিনি। জানান আগামী দিনে কলকাতার সঙ্গে গুয়াহাটির সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনে আরও বেশি করে কাজ করবেন তিনি। ব্যতিক্রম মাসডোর সভাপতি ড. সৌমেন ভারতিয়ার মতে, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমেই মানুষের সঙ্গে মানুষের মনের মিল সুদৃঢ় হয়। অসমিয়াদের সঙ্গে বাঙালিদের মিলনে বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন ডঃ ভূপেন হাজারিকা। তাঁর নামাঙ্কিত সম্মান শিক্ষা ও সংস্কৃতি জগতের উজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব সত্যম রায়চৌধুরীকে এবছর দেওয়া হল।
ভূপেন হাজারিকার জন্মদিন উপলক্ষে গোটা অসম মেতে উঠেছে উৎসবে। রাজধানী গুয়াহাটির একটি পাঁচতারা হোটেলে ব্যতিক্রম মাসডো আয়োজন করেছিল ভূপেন হাজারিকা জন্মজয়ন্তীর। প্রয়াত সুধাকন্ঠের ভ্রাতৃবধু তথা বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী মণীষা হাজারিকা, ঘনীষ্ঠ সহযোগী পদ্মশ্রী সূর্য হাজারিকা, পদ্মশ্রী অজয় দত্ত, বিধায়ক পরমানন্দ রাজবংশী, অভিনেতা প্রাঞ্জল হাজারিকা-সহ বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন এই অনুষ্ঠানে। তাঁরা ভূপেন হাজারিকার জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। সেই আলোচনার মূল সুরটাই ছিল শিল্পীর মানবিক দিক। ‘মানুষ মানুষের জন্য’ বা ‘গঙ্গা আমার মা, পদ্মা আমার মা’, এই গান আজও কতটা প্রাসঙ্গিক, তাও উঠে আসে তাঁদের কথায়। অনুষ্ঠানের প্রধান আকর্ষণ ছিল ভূপেন হাজারিকার নামাঙ্কিত পুরস্কার প্রদান। এদিন ভূপেন হাজারিকার গানকে কেন্দ্রকে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা উপহার দেন স্থানীয় শিল্পীরা।