৮৪ শতাংশ ভারতবাসী চিনকে বিশ্বাসঘাতক মনে করে, বলছে সমীক্ষা

Social Share

নয়াদিল্লি: গত ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চিনের সেনার মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা শহিদ হয়। সেই সংঘাতের পর দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরমে ওঠে। ভারত-চিন উভয় দেশই সীমান্তে সেনা সরঞ্জাম মোতায়েন করতে শুরু করে। দু’দেশের মধ্যে রীতিমতো যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়। তারপরে দফায় দফায় আলোচনা মাধ্যমে পরিস্থিতি এখন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে। তবে দুষ্ট চিন ইস্যুতে সতর্ক ভারত।

চিন বৈঠকে বারবার প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে সেনা সরানোর কথা বললেও মুখে কথা মুখেই রয়ে গিয়েছে। বাস্তবে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর সেনা সরাইনি চিন। বরং আরও সেনা মোতায়েন করেছে চিন। চিনের অতীত রেকর্ডও ভালো নয়। ১৯৬২ সালেও চিন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে সেনা সরানোর কথা বলে। তারপর অতর্কিতে হামলা চালায় ভারতের উপর।

সর্বভারতীয় ম্যাগাজিন ‘ইন্ডিয়া টুডে’র ‘মুড অফ দ্য নেশন’ সমীক্ষাও সেই বার্তা দিল। সমীক্ষায় বলা হয়েছে, দেশের ৮৪ শতাংশ মানুষ মনে করে চিন অবিশ্বাসের পাত্র। কোনও মতেই বিশ্বাসঘাতক চিনকে ভরসা করা যায় না।

সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে, ৫৯ শতাংশ ভারতবাসী মনে করেন চিনের সঙ্গে ভারতের যুদ্ধ হওয়া উচিত। আর সেই যুদ্ধে তাঁরা কেন্দ্রীয় সরকারকে সমর্থন জানাবে। সমীক্ষা বলা হয়েছে, ৬৯ শতাংশ মানুষ মনে করছেন লাদাখ ইস্যুতে কেন্দ্রের মোদী সরকারের নেওয়া সিদ্ধান্ত সঠিক।