৭৭ শতাংশ মানুষ চায় সৌরভ রাজনীতিতে যোগ দিক!

14
Social Share

গত কয়েকমাস ধরে ভারতের সাবেক অধিনায়ক তথা বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলীর বিজেপির রাজনীতিতে যোগদান নিয়ে জল্পনা চলছে। এই সময়ের মাঝে তাকে বেশ কয়েকবার বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বিভিন্ন স্থানে দেখা গেছে। তবে এখন পর্যন্ত সৌরভ এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছুই বলেননি। প্রশ্ন করলেও সযত্নে পাশ কাটিয়ে গেছেন। এবার ওপার বাংলার একটি দৈনিক জরীপ চালিয়েছে। যাতে ৭৭ শতাংশ মানুষ সৌরভের রাজনীতিতে আসার পক্ষে রায় দিয়েছেন।

এবিপি আনন্দ এবং সিএনএক্স-এর যৌথ সমীক্ষায় দেখা গেছে, সৌরভের ওপর সাধারণ মানুষের ব্যাপক আস্থা আছে। প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে বর্তমান রাজনীতিকদের উপর আস্থা কমে গেছে? সমীক্ষায় মমতাকে মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চান ৩৮ শতাংশ মানুষ। ১৯ শতাংশ রাজ্যবাসী মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে চান দিলীপ ঘোষকে। এছাড়া শুভেন্দু অধিকারীকে ১০ শতাংশ, অধীর চৌধুরীকে ৫ শতাংশ এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ৪ শতাংশ মানুষ দেখতে চান মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে।

ভারতীয় গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে, সৌরভ গাঙ্গুলী রাজনীতিতে এলে তিনি নিশ্চয়ই বিধায়ক বা সাংসদ হিসেবে আসবেন না। নিশ্চয়ই মুখ্যমন্ত্রীর মতো রাজ্য রাজনীতির শীর্ষ পদপ্রার্থী হিসেবেই তিনি ময়দানে নামবেন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ছেলে জয় শাহের সঙ্গে তার সহাবস্থান তার বিজেপিতে যোগদানের জল্পনা বাড়িয়ে দেয়। সৌরভ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে থাকার সময় মমতা ব্যনার্জী থেকে শুরু করে বিজেপি-বামফ্রন্টের নেতারা তাকে গিয়ে দেখে এসেছেন, বিবৃতি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জানুয়ারি থেকে ২৭ জানুয়ারি পর্যন্ত এই জরীপ চালানো হয়েছে। সরাসরি কথা বলে ভোটারদের মতামত নেওয়া হয়েছে। মত দিয়েছেন ৮ হাজার ৯৬০ জন। সংকীর্ণ স্তরে সমীক্ষার ফলাফলে পার্থক্য হওয়ার সম্ভাবনা ৩ শতাংশ এবং বৃহত্তর স্তরে এই সম্ভাবনা ৫ শতাংশ। অবশ্য এটা সত্য যে, জরীপের ফলাফল কখনো ধ্রুবসত্য হিসেবে ধরা যায় না। জরীপের বিষয় সম্পর্কে কিছুটা অনুমান করা যায় মাত্র।