৬০ যুদ্ধবিমান নিয়ে গাজার ৬৫ স্থানে ব্যাপক হামলা, হামাসের সুড়ঙ্গ ধ্বংসের দাবি

44
Social Share

ফিলিস্তিনের গাজায় দখলদার ইসরায়েলের বর্বর হামলা অব্যাহত রয়েছে। হামাসের ভূগর্ভস্থ সুড়ঙ্গ থেকে রকেট হামলায় বিপাকে পড়েছিল গোটা ইসরায়েল। চলমান সংঘাতে দেশটির বিভিন্ন শহরে গাজা থেকে বৃষ্টির মতো রকেট হামলা চালানো হয়। বিমান হামলা চালিয়ে হামাসের সেই ভূগর্ভস্থ সুড়ঙ্গ ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছে বলে দাবি করেছে ইসরায়েল।

সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার (১৮ মে) সকাল থেকে গাজার অন্তত ৬৫টি স্থানে বিমান হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলায় ৬০টি জঙ্গিবিমান অংশ নেয়। গাজার পশ্চিমের আর-রামাল এলাকায় সবচেয়ে বেশি হামলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর মুখপাত্র হিদাই জিলম্যান এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, মাত্র আধা ঘণ্টায় আমরা ৬৫টি স্থানে আঘাত হেনেছি। ফিলিস্তিনি সংগ্রামীদের কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ সুড়ঙ্গ ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছে ইসরায়েলি বিমানবাহিনী।

তবে তার এই দাবির সত্যতা নিশ্চিত করে কোনো বার্তা দেয়নি হামাস।

এদিকে পশ্চিম তীরের রামাল্লায় ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলের সংঘর্ষে দুই ইসরায়েলি সেনা সদস্য আহত হয়েছে। অপরদিকে ইসরায়েলি হামলায় ১৪ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানিয়েছে, ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় এক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এ ছাড়া বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। পাশাপাশি ফিলিস্তিনি প্রতিবাদকারীদের ছোঁড়া গুলিতে দুই ইসরায়েলি সেনা আহত হয়েছেন।

এদিকে ফিলিস্তিনে হামলা নিয়ে ইসরায়েলের অভ্যন্তরেই বিবাদের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ইহুদিবাদীদের সঙ্গে আরব মুসলমানদের সংঘর্ষ চলছে। লোদ শহরে ৪৮ ঘণ্টার জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। উগ্র ইহুদিবাদীরা গত রাতেও দখলদার ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বাড়ির সামনে সমবেত হয়ে গাজায় হামলা অব্যাহত রাখার দাবি জানিয়েছে। এদের অনেকেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ইহুদিবাদী।