৩০০তম পর্বে দীপ্ত টিভির দুই ধারাবাহিক

Social Share
দীপ্ত টিভিতে প্রচারিত হচ্ছে দুইটি ধারাবাহিক ‘ভালোবাসার আলো-আঁধার ও মান অভিমান‘। ধারাবাহিকগুলো দর্শকদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে আগামী ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে পূর্ণ করতে যাচ্ছে ৩০০তম পর্ব। তিন শততম পর্বে পদার্পণকে কেন্দ্র করে একদিকে যেমন নাটকের সেটে রয়েছে আনন্দঘন পরিবেশ, অন্যদিকে নাটকের দর্শকরাও অপেক্ষা করে আছে ৩০০তম পর্বে নতুন কোনো নাটকীয়তার।
দীপ্ত টিভিতে প্রতি শনি থেকে বৃহস্পতিবার সপ্তাহে ছয়দিন সন্ধ্যা ৭টায় মান অভিমান ও রাত ৯ টায় ভালোবাসার আলো-আঁধার প্রচারিত হচ্ছে। জেন অস্টেন রচিত ‘প্রাইড এন্ড প্রেজুডিস’ এর অনুপ্রেরণায় নির্মিত ধারাবাহিক নাটক ‘মান-অভিমান‘ এর চিত্রনাট্য নাসিমুল হাসান ও সংলাপ করেছেন সরোয়ার সৈকত। আশিস্ রায়ের পরিচালনায় এ নাটকে অভিনয় করেছেন সমাপ্তি মাশুক, রোজী সিদ্দিকী, তোফা হাসান, ইফফাত আরা তিথি, শিবলী নওমান, সানজিদা ইপসা, আরমান পারভেজ মুরাদ, তানিন তানহা, শেলী আহসানসহ আরও অনেকে। নাটকটির লাইন প্রোডিউসার জাহিদুল ইসলাম জাহিদ। ৩০০ তম পর্বের কাহিনী সংক্ষেপ: খবির আর ঝর্ণার বিয়ে উপলক্ষ্যে বীথিরা পুরো পরিবার হাজির হয় ঢাকায়। অন্যদিকে দাওয়াত পেয়ে রাহাতের পুরো পরিবারও বিয়েতে এসে যোগ দেয়। বিয়ের আয়োজনে বীথিরা সব বোন মিলে নাচ-গানের প্রস্তুতি নেয়। এসব জানতে পেরে ফারিয়া রাহাতের বোনদের সঙ্গে নিয়ে বীথিকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয় নাচ-গানের প্রতিযোগিতার। ফারিয়ার গোপন ইচ্ছা এই প্রতিযোগিতায় বীথিদের হারিয়ে রানুকে চূড়ান্ত রকমের অপদস্ত করা, যাতে রানু রাহাতের জীবন থেকে একেবারে চলে যায়। আর বীথিও চ্যালেঞ্জটা নেয়, যাতে প্রতিযোগিতায় জিতে তার পরিবার ও রানুর সম্মান ফিরিয়ে আনতে পারে সে। বীথি প্রতিজ্ঞা করে যেভাবেই হোক এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সে প্রমাণ করবে রানু রাহাতের সাথে কোনো অন্যায় করেনি। কিন্তু বীথি কি পারবে ফারিয়াদের ষড়যন্ত্রের মাঝে তার প্রতিজ্ঞা রক্ষা করতে?
অন্যদিকে দীপ্ত টেলিভিশনের আরেকটি ৩০০তম পর্বে উত্তীর্ণ হতে যাওয়া ধারাবাহিক ‘ভালোবাসার আলো-আঁধার’। ফাহমিদুর রহমানের চিত্রনাট্য এবং নুসরাত জাহান ও কলিন রড্রিকের সংলাপে রচিত এই ধারাবাহিকটি পরিচালনা করেছেন গোলাম সোহরাব দোদুল। নাটকটির লাইন প্রোডিউসার মোস্তফা মনন। সুষমা সরকার, শাহেদ শরিফ খান, সাইফুল জার্নাল, সাবিনা দীপ্তি, করভী মিজান, হোসাইন নিরব, ফারিয়া শাহরিন, অরুনা বিশ্বাস, আবুল কাশেম, মিলি মুন্সী, চান্দা মাহজাবিন, রেজাউল সুজন, স্বাগতা, আইনুন পুতুল, রুহুল, তূর্য, নাজাহ আলাইনা আরো অনেকে। জ্যোতিকে কিডন্যাপ করার বিষয়ে তারানার সমস্ত সন্দেহ নন্দিনীকে নিয়েই। তারানার প্রাপ্ত তথ্য প্রমাণও নন্দিনীকেই দোষী সাব্যস্থ করে যাচ্ছে। এদিকে নন্দিনী চিন্তিত জ্যোতিকে কি করে উদ্ধার করবে। এই নিয়ে মাহিনের সাথে আলাদা করে মিশন শুরু করে সে। আর তার জন্য অপূর্বর সাথে বিয়ে পিছিয়ে দেয় নন্দিনী। জ্যোতিকে উদ্ধার না করে সে বিয়েতে বসতে পারবে না। তাই নিয়ে বিষিয়ে ওঠে অপূর্বর মন। নন্দিনী কি সত্যি পারবে জ্যোতিকে উদ্ধার করতে? নাকি রাইসার ষড়যন্ত্রে সব কূল হারাবে নন্দিনী? ৩০০ তম পর্বে এই ভালোবাসা কোথায় গিয়ে দাঁড়াচ্ছে তা জানতে চোখ রাখুন দীপ্ত টিভির পর্দায়।