১৪৪ বছরের ইতিহাস পাল্টে দিয়ে জিততে পারবে কোহলিরা?

22
Social Share

চেন্নাই টেস্টে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের দাপটে ইংল্যান্ডকে দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৭৮ রানেই গুটিয়ে দিয়েছে ভারত। তবে এতেও পরাজয় চোখ রাঙাচ্ছে কোহলি-রাহানেদের সামনে। তৃতীয় দিনের শেষেই বোঝা গিয়েছিল ভারতের হাত থেকে কার্যত ম্যাচটি বেরিয়ে গেছে। চতুর্থ দিনের শেষে সেটাই আরো স্পষ্ট হলো। অলৌকিক কিছু না ঘটলে ভারতের এই টেস্ট জেতার কোনও সম্ভাবনা নেই। কোহলিদের উল্টে এখন লড়তে হবে ম্যাচ বাঁচানোর জন্য।

চতুর্থ দিন শেষে রোহিত শর্মার উইকেট হারিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের স্কোর ৩৯/১। ক্রিজে রয়েছেন শুভমন গিল (১৫) এবং চেতেশ্বর পূজারা (১২)।

আগের দিন ২৫৭/৬ নিয়ে শুরু করে চতুর্থ দিন কতক্ষণ লড়তে পারেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং ওয়াশিংটন সুন্দর, ক্রিকেটপ্রেমীর চোখ ছিল সে দিকেই। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে দু’জনেরই ব্যাট করার অভিজ্ঞতা আগেও রয়েছে। সে ভাবেই শুরু থেকে জফ্রা আর্চার, জেমস অ্যান্ডারসন, ডম বেসদের সামলে লড়ে যাচ্ছিলেন তারা। চতুর্থ দিন ৫০ রান যোগ করে ফিরলেন অশ্বিন।

প্রত্যাশামতোই এরপরে যাঁরা ছিলেন তাঁদের পক্ষেও দীর্ঘক্ষণ উইকেটে টিকে থাকা সম্ভব ছিল না। হয়ওনি। একদিকে সুন্দর ধরে রাখলেও অপরদিকে শাহবাজ নাদিম, ইশান্ত শর্মারা টলমল করছিলেন। শেষমেশ ৩৩৭ রানে শেষ হয় ভারতের প্রথম ইনিংস।

ফলো-অন করিয়ে ভারতকে আরো সমস্যার মধ্যে ফেলতে পারতেন ইংলিশ ক্যাপটেন জো রুট। কিন্তু ৯৬ ওভার বল করার পর বোলারদের বিশ্রাম দিতেই তিনি সম্ভবত ফলো-অন করানোর ভাবনা থেকে সরে আসেন। নিজেরাই আবার ব্যাট হাতে তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ঘুর্‌ণি দাপটে ইংল্যান্ডকে দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৭৮ রানেই গুটিয়ে দিয়েছে ভারত। অশ্বিন নিয়েছেন ৬ উইকেট—ক্যারিয়ারে ২৮তম বার তাঁর ইনিংসে ৫ বা তার বেশি উইকেট পাওয়ার ঘটনা। তবে এই অল্প রানেই এখন ‘দুর্গম গিরি’র সামনে দাঁড়িয়ে ভারত। জিততে হলে এশিয়ার মাটি তো বটেই, টেস্ট ইতিহাসে ১৪৪ বছরের রেকর্ড পাল্টে দিয়েই জিততে হবে বিরাট কোহলির দলকে। জয়ের জন্য যে ভারতকে ৪২০ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ইংল্যান্ড, টেস্টে এত রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড নেই।

লাল মাটির পিচের অবস্থা চতুর্থ দিনে ইতোমধ্যেই বেশ খারাপ। বল যে দিকে সে দিকে ঘুরছে, আচমকা নিচু হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে কোহালিদের সামনে ম্যাচ বাঁচানোর চিন্তা ছাড়া আর হয়তো কোনো পথ নেই। ধারাভাষ্যকার থেকে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরাও মনে করছেন, এই পিচে ৪২০ রান তাড়া করে জেতা কার্যত অসম্ভব।

কোহালিদের কাছে তাই ১-০ এগিয়ে যাওয়া কার্যত দিবাস্বপ্নই মনে হচ্ছে।