হিন্দুদের ছুরি দেখিয়ে হুমকি, গনধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

45
Social Share

কাজল আর্য, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কয়েকটি হিন্দু পরিবারে ছুরি দেখিয়ে ভয় দেখানোয় মীর শহীদুর রহমান (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী। পরে তাকে থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। এ সময় ওই ব্যক্তি নিকট একটি ছুরি, একটি দা, দুটি লাঠি ও একটি হাতুরি উদ্ধার করে পুলিশ।

বুধবার দুপুরে উপজেলার বানাইল ইউনিয়নের আটঘরি এলাকায় এঘটনা ঘটে। শহীদুর রহমান আনাইতারা ইউনিয়নের আটঘরি গ্রামের মৃত. সেকান্দার আলীর ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, মীর শহীদুর রহমানের বাড়ির সামনে তার একটি দোকানঘর রয়েছে। সে মাঝে মধ্যে ছুরি, দা, লাঠি নিয়ে আটঘরি গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে গিয়ে মুর্তি ঘরের সামনে গিয়ে শুয়ে থাকে। ধর্মীয় পোস্টার ছিড়ে ফেলে। এছাড়া বিভিন্নভাবে হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারের সদস্যদের হুমকি প্রদর্শন করে।

বুধবার দুপুরে মীর শহীদুর রহমান দা ও লাঠি নিয়ে আনন্দ মোহন চক্রবর্তীর বাড়িতে গিয়ে হুমকি প্রদর্শন করে। পরে মন্দিরের সামনে থাকা ধর্মীয় পোস্টার ছিড়ে ফেলে। মন্দির ঘরে প্রবেশের চেষ্টা করে তালা থাকায় ভেতরে যেতে না পেরে বারান্দায় শুয়ে থাকে। তার ভয়ে বাড়ির লোকজন ঘরে তালা দিয়ে ভেতরে অপেক্ষা করতে থাকে। গ্রামের লোকজন খবর পেয়ে তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে আটঘরি বাজারে নিয়ে আটকে রেখে পুলিশ খবর দেয়।

আটঘরি গ্রামের আনন্দ মোহন চক্রবর্তী ও তার স্ত্রী গায়েত্রী চক্রবতী জানান, মাঝে মধ্যেই শহীদুর ছুরি ও লাঠি নিয়ে তাদের বাড়িতে গিয়ে বাড়ির লোকজনকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। তার ভয়ে আমরা আতঙ্কে দিন পার করি। গ্রামের দিলীপ সরকার, প্রণব কুমার রায়, অঞ্জলী সরকার, দিপালী সরকার একই কথাই জানান।

আনাইতারা ইউপি সদস্য ও গ্রামের বাসিন্দা সামছুর রহমান সন্টু জানান, শহীদুরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারকে ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ রয়েছে।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগে শহীদুরকে আটক করা হয়েছে। মানসিক ভারসাম্যহীন হলে পরিবারের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।