স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে থাকছে বর্ণাঢ্য আয়োজন

27
Social Share

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বর্ণাঢ্য ও যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে উদ্যাপন করবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে ড্রোন শো, অ্যারিয়াল শো ও ফায়ারওয়ার্কস শো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এগুলো বাস্তবায়নের জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতি অনুসরণে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

গতকাল বুধবার ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে আয়োজিত অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ও সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠক দুটি অনুষ্ঠিত হয়।

ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। এটিকে আমরা বর্ণাঢ্য ভাবে আয়োজন করতে চাই। এর মাধ্যমে দেশবাসীকে আমরা বিগত সময়ে যে অর্জন করেছি সেগুলো জানাতে চাই। যদি অফিসে বসে বসে করি তাহলে দেশবাসী জানবে না। এতে কত টাকা ব্যয় হবে সে প্রশ্ন করা হলে অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনৈতিক বিষয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি এটির নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। আগামীতে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে ব্যয়ের বিস্তারিত বিষয়গুলো আসবে।

অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে চাল ও গম আমদানির লক্ষ্যে ক্রয় প্রক্রিয়ার সময় হ্রাস করার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে পিপিএ ২০০৬-এর ৬৮(১) ধারা এবং পিপিআর ২০০৮-এর বিধি ৭৬(২) অনুযায়ী সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে ১ লাখ মেট্রিক টন নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল ভারত থেকে ক্রয়ের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

ক্রয় প্রক্রিয়ার সময় হ্রাস করার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, এ বিষয়ে কিছু আইনি সীমাবদ্ধতা রয়েছে। সরাসরি ক্রয় পদ্ধতি অনুসরণ করে শুধু দেশের অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সময় হ্রাস করে পণ্য সংগ্রহ করা যেত। পিপিআর অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে পণ্য সংগ্রহে সময় কমানোর বিষয়ে কিছু বলা নেই। এজন্য পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগকে (আইএমইডি) বিধি সংশোধন করতে বলা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক টেন্ডারে অংশ নেওয়ার পর আমাদের ৪০ থেকে ৪২ দিন অপেক্ষা করতে হয়। কিন্তু কিছু পণ্য রয়েছে যেমন পেঁয়াজ, চাল, ডাল, এ জাতীয় পণ্য প্রতিদিনই আন্তর্জাতিক বাজারে দর বাড়ে কমে। এজন্য এতদিন অপেক্ষা করা যায় না। রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে চাল ও গম আমদানির লক্ষ্যে ক্রয় প্রক্রিয়ার সময় হ্রাস করার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আইএমইডিকে পিপিআর সংশোধন করতে বলা হয়েছে।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামাল সাংবাদিকদের জানান, সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় দুটি প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। এরমধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক ডেভেলপিং রিডিং হ্যাবিট পোগ্রাম ইমপ্লিমেন্টেশন ম্যানেজমেন্ট সার্ভিস এর আওতায় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের নিকট থেকে ২৪ মাস সময়ের জন্য ৮২ কোটি ৭০ লাখ টাকায় পরামর্শক সেবা ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক ‘শতভাগ পল্লী বিদ্যুতায়নের জন্য বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ’ (রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল বিভাগ) প্রকল্পের ২৬৪ কি.মি. ১১ কেভি ও ৩৩ কেভি সাবমেরিন ক্যাবল বিআরবি ক্যাবল ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর নিকট থেকে ১০৭ কোটি ৯৪ লাখ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।