সৌদিতে নারী কর্মীদের নির্যাতন রোধে নতুন চুক্তি

Social Share

সৌদি আরবে বাংলাদেশি নারী শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন প্রতিরোধে দেশটির সঙ্গে নতুন চুক্তি হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমেদ।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন দিবসকে সামনে রেখে মঙ্গলবার  প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি।

এছাড়া শিগগিরই মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার চালু হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বলেন, কম খরচে কর্মী পাঠানো ও নিরাপদ অভিবাসনই সরকারের প্রধান লক্ষ্য।

মন্ত্রী বলেন, গত মাসের ২৭ তারিখে সৌদি সরকার নারী শ্রমিক নির্যাতন প্রতিরোধে তাদের দেশে সেল খোলার কথা জানিয়েছে। এখন থেকে কোনো নারী অভিযোগ না করলেও তার পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেবে সৌদি সরকার। নারী শ্রমিকদের কম মজুরি, চুক্তি অনুযায়ী নিয়োগ না দিলে এবং অভিবাসন ব্যয় বেশি নিলে ব্যবস্থা নেবে বাংলাদেশ সরকার।

বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য দ্রুত মালয়েশিয়া তাদের বাজার উন্মুক্ত করবে। ইউক্রেন, মরিশাস, উগান্ডার মতো অনেক দেশেও শ্রমিক পাঠানোর ব্যাপারে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রী।

প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী আরও জানান, এখন থেকে নির্যাতনের দায়ে চাকরিদাতার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে সৌদি আরবে নারী কর্মী সুরক্ষায় নতুন উদ্যোগ নেয়ার কথা জানায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়। নতুন চুক্তি অনুযায়ী নির্যাতনকারী চাকরিদাতার বিরুদ্ধে নেয়া যাবে আইনগত ব্যবস্থা। ফলে নির্যাতিত হয়ে কর্মীদের দেশে ফেরার হার কমবে বলে মনে করছে মন্ত্রণালয়।

বাঁচার আকুতি জানিয়ে সৌদি আরব থেকে বার বার আসছে বার্তা। কেউ ফিরতে পেরেছেন। কেউ ফিরেছেন কফিনবন্দি হয়ে।

১৯৯১ সালের পর থেকে বিভিন্ন দেশে নারী কর্মী গেছে প্রায় ৯ লাখ। এরমধ্যে সৌদি আরবেই অভিবাসী নারীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন লাখ।

জানানো হয়, নারী কর্মীদের নির্যাতন রোধে সৌদি সরকারের সঙ্গে নতুন চুক্তি হয়েছে। নির্যাতিতাদের আর্থিক সহায়তাসহ পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়ার কথা জানান প্রবাসীকল্যাণ সচিব।