‘সেতুমন্ত্রীর দাঁতভাঙা জবাবের কথা শুনে আমি হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রাখি’

17
Social Share

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, বানের স্রোতের মতো কর্মসূচিতে আমাদের নেতাকর্মীরা আসছে। এই স্রোতে ভেসে যাবে মাফিয়া সরকার। এই বানের স্রোতের মধ্যে ভেসে যাবে মাফিয়া সরকারের সমস্ত আসর এক এক করে। সেই দিন পর্যন্ত ক্লান্তিহীনভাবে আমরা আন্দোলনের মধ্যে থাকব।

আজ বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের প্রতিবাদে এক সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

আলাল বলেন, কাল সারারাত ঘুমোতে পারিনি। আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দাঁতভাঙা জবাব দেবো’। উনার এই বক্তব্যের পর আমি সারাক্ষণ হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রাখি। কখন দাঁতটা ভেঙে ফেলে! কিন্তু মুশকিল হচ্ছে, দাঁত কোনো জায়গায় ভাঙবেন? গতকাল ফেনী ও নোয়াখালীর আপনার নেতারা বলেছেন, আপনার ভাই কাদের মির্জা নাকি বিএনপির এজেন্ট। এখন ভাঙেন দাঁত। পারলে ওখানে গিয়ে দাঁত ভাঙেন।

তিনি বলেন, এর আগে দেখলাম হাজী সেলিমের পোলা নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মেরে দাঁত ভেঙে দিয়েছে। তার আগে দেখেছি, শামীম ওসমান ও আইভী রহমান দাঁত ভাঙাভাঙি করছে। তার আগে দেখেছি, মাহবুব-উল আলম হানিফ ও হাসানুল হক ইনুর মধ্যে দাঁত ভাঙাভাঙি চলছে। তার আগে দেখেছি, কাজী জাফরউল্লাহ ও নিক্সন চৌধুরী একজন আরেকজনের দাঁত ভাঙছে। এই যে দাঁত ভাঙাভাঙি চলছে, এখন পারলে নিজের ঘরে দাঁত ভাঙেন।

ক্ষমতাসীনদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যা করেছেন ভালো করেছেন। এবার দয়া করে থামেন। না হলে লু‌ঙ্গিতে মাড়কাচা দিলেও কাজ হবে না। যখন আপনারা দৌড়াবেন তখন অন্য গ্রুপ বলবে ‘লুঙ্গি ডান্স, লুঙ্গি ডান্স’। সেই দিনের জন্য প্রস্তুত থাকেন। জিয়াউর রহমান কিংবা বেগম জিয়ার দিক থেকে হাত সরিয়ে নেন। গ্রেপ্তার সবাইকে মুক্তি দেন।

সমাবেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান ও আব্দুল সালাম, দলের ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ ও শহিদুল ইসলাম বাবুলসহ ছাত্রদল, যুবদল, মহিলাদল এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।