সারাদেশে সাংবাদিক নির্যাতন এবং গ্রেফতার বেড়ে যাওয়ায় বিএফইউজের উদ্বেগ প্রকাশ

(বিএফইউজে)বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও মহাসচিব শাবান মাহমুদ
Social Share

করোনা পরিস্থিতিতে ঢাকাসহ সারাদেশে সাংবাদিকদের উপর হামলা মামলা নির্যাতন এবং গ্রেফতার বেড়ে যাওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন (বিএফইউজে)বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও মহাসচিব শাবান মাহমুদ এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান। তারা বলেন, গত ৩ মে বিশ্ব মুক্তগণমাধ্যম দিবসে সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেফতার দেখিয়ে যেভাবে তাকে চোর ডাকাতের মত পিঠমোড়া করে বেঁধে আনা হয়েছে, তা দেখে যে কোনো সভ্য সমাজের মানুষের মাথা লজ্জায় ও প্রচণ্ড ঘৃণায় মাথা হেট হয়ে যাবে।

বুধবার (৬মে) বিএফইউজে’র যুগ্ন মহাসচিব আবদুল মজিদের স্বাক্ষরিত এক প্রতিবেদনে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

নেতৃদ্বয় বলেন, পুলিশ আইনানুগভাবে নিরপেক্ষ হয়ে দায়িত্ব পালন করবে এটাই কাম্য। কিন্তু কাজলের প্রতি পুলিশের আচরণ দেখে মনে হয় কাজল যেন পুলিশের বা প্রতিপক্ষ। বিশ্ব মুক্তগণমাধ্যম দিবসে কাজলের প্রতি পুলিশের এই আচরণের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এতে দেশ বিদেশের বিবেকবান মানুষ তীব্র ঘৃণা ও নিন্দা জানিয়েছেন।

তারা বলেন, ২০১৮ সাল থেকে শুরু করে গত এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে ১৮০ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটা নিরাপত্তা আইন ও ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। এসব মামলায় সাংবাদিকদের যে প্রক্রিয়ায় গ্রেফতার ও নির্যাতন করা হয়েছে তা ন্যায় বিচারের অবমাননা।

বিএফইউজে নেতৃদ্বয় আরো বলেন, কাজল ছাড়াও ঢাকায় জাগো নিউজ এবং বিডি নিউজের সম্পাদকের বিরুদ্ধে তুচ্ছ বিষয়ে মামলা দায়ের, নরসিংদীতে তিন সাংবাদিককে গ্রেফতার এবং সর্বশেষ সিলেটে একটি পত্রিকার সম্পাদক মাহতাবকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়েছে।

এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছে জানতে চাইলে, জবাব আসে “আইন তার নিজস্ব গতিতে চলে।প্রশ্ন হচ্ছে কাজলের প্রতি যে ব্যবহার করা হয়েছে সেটা কি আইনের নিজস্ব গতি ?

সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা তুচ্ছ ঘটনার মামলাগুলো অবিলম্বে প্রত্যাহার এবং বিশেষ ব্যবস্থায় জরুরি ভিত্তিতে নিষ্পত্তি করার দাবি জানান বিএফইউজের নেতৃদ্বয়।