সাতক্ষীরা নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ১০ জন গুলিবিদ্ধ

126
সাতক্ষীরা
Social Share

সাতক্ষীরা র আশাশুনি উপজেলার খাজরা ইউনিয়নে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে খাজরা ইউনিয়নের গদাইপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

খাজরা ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিম জানান, কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে গদাইপুর যাওয়ার পথে পরাজিত প্রার্থী অহিদুল তার আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি ছোড়ে এবং তার বাড়ির ছাদ থেকে ইট পাটকেল ছোড়ে। সেখানে ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। আহতদের আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে আসাদুল ইসলাম ও রাসেল হোসেনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে অহিদুল ইসলাম জানান, গতকাল রাত থেকে দফায় দফায় তারা আমার বাড়িতে হামলা চালায়। সকালে গেট ভেঙে আমার বাড়িতে ঢোকার সময়ে জীবন বাচাতে আমি আমার লাইসেন্সকৃত স্টেইনগান দিয়ে ছররা গুলি ছুড়তে বাধ্য হয়েছি।

আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবির জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়োন করা হয়েছে। এলাকার এখন শান্ত রয়েছে।

…………………………………………………………………………………..

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার খাজরা ইউনিয়নে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে খাজরা ইউনিয়নের গদাইপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

খাজরা ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিম জানান, কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে গদাইপুর যাওয়ার পথে পরাজিত প্রার্থী অহিদুল তার আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি ছোড়ে এবং তার বাড়ির ছাদ থেকে ইট পাটকেল ছোড়ে। সেখানে ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। আহতদের আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে আসাদুল ইসলাম ও রাসেল হোসেনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে অহিদুল ইসলাম জানান, গতকাল রাত থেকে দফায় দফায় তারা আমার বাড়িতে হামলা চালায়। সকালে গেট ভেঙে আমার বাড়িতে ঢোকার সময়ে জীবন বাচাতে আমি আমার লাইসেন্সকৃত স্টেইনগান দিয়ে ছররা গুলি ছুড়তে বাধ্য হয়েছি।

আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবির জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়োন করা হয়েছে। এলাকার এখন শান্ত রয়েছে।

আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবির জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়োন করা হয়েছে। এলাকার এখন শান্ত রয়েছে।