সঙ্কটজনক রাশিয়া, দৈনিক মৃত্যু সর্বাধিক

প্রতীকী ছবি
Social Share

কোভিড-১৯-এ রাশিয়ায় দৈনিক মৃত্যুর হার সর্বোচ্চ সীমা ছাড়াল। সে দেশে নতুন করে করোনা-আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজারের বেশি মানুষ। তাঁদের মধ্যে অর্ধেকেরই কোনও উপসর্গ নেই।

সব মিলিয়ে সংক্রমিত ১ লক্ষ ৩৪ হাজার ৬৮৭ জন। আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক রাজধানী মস্কোতে। সেখানে প্রতিদিন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন প্রায় ১৭০০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫৭ জনের মৃত্যু হওয়ায় দেশে মৃতের সংখ্যা মোট দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৮০।

সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে মার্চের শেষ থেকে আংশিক লকডাউন জারি করেছে রাশিয়া। মস্কোয় বিশেষ অনুমতি ছাড়া সর্বত্র ঘোরাফেরা করতে পারছেন না সাধারণ মানুষ। শুধুমাত্র জিনিস কিনতে, কুকুরকে হাঁটাতে ও আবর্জনা ফেলার জন্য বাইরে বেরোতে পারছেন তাঁরা। এর মধ্যেই সংক্রমণের মাত্রা বাড়ায় শনিবার মস্কোবাসীকে স্বেচ্ছা-নিভৃতবাসে থাকার আবেদন জানিয়েছেন শহরের মেয়র। ব্লগেও তিনি লিখেছেন, ‘‘করোনার ভয়াবহতা আরও বাড়ছে।’’ পরিস্থিতি আরও খারাপ হলে শহরের বুকে ঘোরাফেরা করার জন্য দেওয়া ডিজিটাল পারমিটের সংখ্যা আরও কমানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। ব্রাজ়িলেও গত ১০ দিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। করোনায় সে দেশে মৃত্যু হয়েছে সাত হাজারের কাছাকাছি। আক্রান্ত ৯৭ হাজার ছাড়িয়েছে।

গত মাসে লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে রবিবার প্রথম গির্জা খুলছে জার্মানিতে। মার্চের পর সোমবার থেকে ইরানেরও কিছু শহরে খুলে যাচ্ছে মসজিদ। তাইল্যান্ডেও ধাপে ধাপে তোলা হচ্ছে লকডাউন। খুলে দেওয়া হচ্ছে পার্ক ও ছোটখাটো দোকানগুলি।

ব্রিটেনে সরকারিভাবে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৮ হাজার ১৩১। জাতীয় পরিসংখ্যান দফতর জানিয়েছে, এই সংখ্যা আদতে ৩০ হাজারের কাছাকাছি হতে পারে। সমীক্ষায় উঠে এসেছে, ব্রিটেনের অর্ধেকের বেশি চিকিৎসককে নিজেদের সুরক্ষাসামগ্রী নিজেদেরই কিনতে হচ্ছে।  বা অনুদানের উপরে নির্ভর করতে হচ্ছে। আফগানিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, সে দেশে নতুন করে করোনা-আক্রান্ত হয়েছেন ২৩৫ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা তিন হাজারের কাছাকাছি। মৃত ৮৫। স্বেচ্ছাসেবীদের আশঙ্কা, করোনা- আতিমারির ফলে সে দেশে ৭০ লক্ষেরও বেশি শিশু খাদ্যাভাবে ভুগতে পারে।

স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, রবিবার সে দেশে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৬৪ জন। গত ১৮ মার্চের পর থেকে এক দিনে যা সবচেয়ে কম। দেশে মোট মৃত্যু ২৫ হাজার ২৬৪। এ দিকে, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি থেকে দেশে ফেরার জন্য আবেদন জানিয়েছেন ৩২ হাজারের বেশি ভারতীয়।

মার্কিন পপ গায়িকা ম্যাডানো জানিয়েছেন, সম্প্রতি অ্যান্টিবডি পরীক্ষা হয়েছিল তাঁরা। রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, তাঁর শরীরে করোনা প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে। তা জানার পরে তিনি ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘‘এ বার আমি গাড়ি নিয়ে লং ড্রাইভে বেরিয়ে পড়ব। জানলা নামিয়ে কোভিড-১৯-এর বাতাসে নিশ্চিন্তে শ্বাস নিতে পারব।’’