সংবাদ সম্মেলনে: ভারতের শেলবি হাসপাতাল উন্নত চিকিৎসা দিতে চায় বাংলাদেশের রোগীদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
ভারতের শীর্ষ স্থানীয় অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন ‘শেলবি মাল্টি-স্পেশাল হাসপাতাল’ তাদের সেবা নিয়ে শিগগিরই আসছে বাংলাদেশে। দীর্ঘ ২৬ বছরের অভিজ্ঞতায় বাংলাদেশে স্থাপণ করছে যাচ্ছে তাদের ১২তম ইউনিট। এ লক্ষ্যে হাসপাতালটির পক্ষ একটি প্রতিনিধিদল কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন এবং সমীক্ষার কাজ শেষ করে চুড়ান্ত সিদ্ধাšেন্ত পৌঁছেছেন। হাসপাতালটি উন্নত চিকিৎসা দিতে চায় বাংলাদেশের রোগীদের । আজ মঙ্গলবার তারা জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।
প্রতিনিধিদলের প্রধান ডা. ভারত গাজ্জার জানান, আমরা দেখেছি বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ্য রোগী ভারতে চিকিৎসা নিতে ভারতে যান এবং তারা নানা ধরনের বিড়ম্বনায় পড়েন। এসব রোগীরা আমাদের ‘শেলবি’ হাসপাতালেও চিকিৎসা নিয়ে থাকেন। কিন্তু তাদের যাতায়াত, ফলোআপসহ নানা সমস্যায় পড়েন। তাই আমাদের সেবা আপনাদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে চায়। শেলবি মাল্টি-স্পেশাল হাসপাতালে বাংলাদেশ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, কানাডা, রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের প্রায় ৩০টি দেশ থেকে রোগীরা চিকিৎসা গ্রহণ করেন। রোগীদের সবচেয়ে কম খরচে আন্তজাতিক মানের সেবা দিতে আমরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও এই হাসপাতালটির সেবা সম্পর্কে প্রশংসা করেছেন। তিনি আরও বলেন, টাকার কম থাকার জন্য আমাদের হাসপাতালে চিকিৎসা না নিয়ে ফিরে যাইনি।
ডা. খুশ ভায়েস জানান, বিশ্বের প্রখ্যাত জয়েন্ট রিপ্লেসমেন্ট সার্জন ডা. বিক্রম শাহ জিরো টেকনিক অনুযায়ী গুজরাটে ‘শেলবি মাল্টি-স্পেশাল হাসপাতাল’ প্রতিষ্ঠা করেন। এখানে মাত্র ২ লাখ টাকাতেও নিখুঁতভাবে হাঁটুর জয়েন্ট রিপ্লেসমেন্ট করা হয় এবং এক্ষেত্রে আমরা ১০০ ভাগ সফল। অনেকেই মনে করেন হাঁটুর ব্যাথা নিরাময় হবার নয়, এটি ঠিক নয়। জয়েন্ট রিপ্লেসমেন্ট ছাড়াও শেলবি মাল্টি-স্পেশাল হাসপাতালে লিভার ট্রান্সপ্লান্ট, কিডনি ট্রান্সপ্লান্ট, ক্রিটিক্যাল কেয়ার এন্ড ট্রমা, স্পাইন সার্জারি, নিউরো সার্জারি, হার্ট সার্জারি, প্লাস্টিক সার্জারি, আইভিএফ ক্যান্সার সার্জারিসহ প্রায় ২০ ধরনের জরুরি সেবা দেওয়া হয়। এজন্য ভারতের বিভিন্ন শহরে শেলবি হাসপাতালের ১১টি ইউনিটে ৫০০ ডাক্তার, ৪০০০ স্টাফ সেবা দিতে নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের নিকটম ও বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশি বাংলাদেশি রোগীদের ক্ষেত্রেও আমরা বিশেষ গুরুত্ব দিতে চায়। এজন্য সবার সহযোগিতা একান্তভাবে কাম্য। এ সময় শেলবি মাল্টি-স্পেশাল হাসপাতালের ইন্টারন্যাশনাল ম্যানেজার অনিতা রায় উপস্থিত ছিলেন।