সংঘর্ষে আহত হলো ১০, ওসি বললেন ‘কিছুই হয়নি’

সিলেটের বিয়ানীবাজারে ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী শোভাযাত্রায় দুগ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দুপুর ২টার দিকে পৌরশহরের কলেজ রোডে এ সংঘর্ষে ঘটনা ঘটে। এ সময় দুপক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি, ইটপাটকেল মারার ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের ছাত্রলীগের ১০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার খবর পাওয়া। তবে ঘটনা ধামাচাপা দিতে মরিয়া বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অবনী শংকর কর। তিনি জানান, এখানে কোনো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। মিছিলের সময় দুগ্রপের মধ্যে মৃদু ইটপাটকেল মারার ঘটনা ঘটেছে। তবে এই ঘটনায় কেউ আহত হয়নি।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষৈ বিয়ানীবাজার উপজেলা ছাত্রলীগের বিদ্যমান গ্রুপগুলো পৃথক কর্মসূচির আয়োজন করে। ছাত্রলীগের রিভারবেল্ট ও স্বাধীন গ্রুপ পৃথক কর্মসূচি উদ্‌যাপনের একপর্যায়ে দুটি গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ইনার কলেজ রোডে প্রথমে ধাক্কাধাক্কি ও হাতহাতি শুরু হয়। দুগ্রুপের নেতাকর্মীরা বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়লে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। পরে দুগ্রুপের মধ্যে কলেজ রোড ও টিঅ্যান্ডটি রোডে দেশীয় অস্ত্রের মহড়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালে দুগ্রুপের ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদিকে, সংঘর্ষের খবর পেয়ে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ এবং ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

রিভারবেল্ট গ্রুপের নেতা সাইদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী শোভাযাত্রায় হামলা চালায় স্বাধীন গ্রুপের কর্মীরা। তাদের হামলায় আমাদের আটজন কর্মী আহত হয়েছে। আমাদের কর্মী ফখরুর ইসলামের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ওদিকে স্বাধীন গ্রুপের নেতা কে এইচ সুমনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অবনী শংকর কর জানান, বিয়ানীবাজার পৌরশহরের ছাত্রলীগের দুগ্রপের মধ্যে কোনো সংঘর্সের ঘটনা ঘটেনি। তবে মিছিলের সময় দুগ্রপের মধ্যে মৃদু ইটপাটকেল মারার ঘটনা ঘটেছে। তবে আমার জানা মতে কেউ আহত বা নিহত নেই। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।