শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় সরব নারায়ণগঞ্জ

30
শেষ মুহূর্তের
Social Share

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আর মাত্র তিন দিন বাকি। নেচে গেয়ে উত্সবমুখর পরিবেশে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচারণা। আগামীকাল শুক্রবার মধ্যরাতে প্রচার-প্রচারণা শেষ হবে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নৌকা ও হাতি মার্কার সমর্থকরা যেমন মরিয়া, তেমনই প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে চলছে কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। পাড়া-মহল্লাগুলোতে দুপুরের পর শুরু হয় খণ্ড খণ্ড মিছিল। কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চাওয়ার স্লোগান। বিভিন্ন গান আর কবিতায় কাউন্সিলর প্রার্থীরা তাদের সমর্থকদের নিয়ে বুধবার ২৭টি ওয়ার্ডেই প্রচার-প্রচারণা চালানোর ফলে অলিগলিতে সৃষ্টি হয় যানজট। এসব প্রচার-প্রচারণায় কোনো প্রকার স্বাস্হ্যবিধি মানার প্রবণতা দেখা যায়নি। নির্বাচনি প্রচারণার শুরু থেকেই স্বাস্হ্যবিধি উপেক্ষিত ছিল।

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী বুধবার সকালে ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে ও বিকালে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে প্রচারণা চালান। স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার ১২ নম্বর ওয়ার্ডসহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় প্রচারণা চালান। গতকাল তৈমূর আলম খন্দকারের প্রচারণায় মহিলাদের উপস্হিতি ছিল লক্ষণীয়। সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকরা নৌকা নিয়ে

নেচে গেয়ে নৌকার পক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। তৈমূর আলম খন্দকার সাবেক এমপি এস এম আকরামকে সঙ্গে নিয়ে হাতি প্রতীকে প্রচারণাকালে তার সমর্থকরা হাতি মার্কায় ভোট চাওয়ার পাশাপাশি শামীম ওসমানের খেলা হবে সেই স্লোগান দিতে থাকে। তবে তৈমূরের সঙ্গে যারা ছিল তাদের অনেকটাই আতঙ্কগ্রস্ত দেখা গেছে। 

তৈমূর আলম খন্দকারের পক্ষে গতকাল পদবিহীন বিএনপির অনেক নেতার পাশাপাশি গায়ক আসিফ আকবর হাতি মার্কায় ভোট প্রার্থনা করে বলেন, মানুষ পরিবর্তন চায়। আইভীর পক্ষে প্রাক্তন খেলোয়াররা মাঠে নেমে নৌকার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেন। এক কথায় প্রচারণার দুই দিন থাকতে গতকাল দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা নারায়ণগঞ্জকে উত্সবের নগরীতে পরিণত করে। 

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘জীবনে কখনো চাঁদাবাজি করিনি। আমার কোনো বাহিনী নেই। শহরে শান্তিতে থাকতে চাইলে আইভীকে বেছে নেবেন। কোনো গডফাদারের উত্থান যেন নারায়ণগঞ্জে না হয়। এটা হতে দিয়েন না। ধমকের সুরে কথা বলবে এমন কাউকে আপনারা ভোট দিয়েন না।’ 

সাধারণ ব্যবসায়ীদের ভয় না পাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আইভী বলেন, ‘জীবনে আপনাদের কাছ থেকে চাঁদা নেইনি। আমার কোনো বাহিনী আপনাদের কাছে যায়নি। এই নারায়ণগঞ্জ শহরে কেউ কোনো দিন বলতে পারবে না যে, আমি কারো গায়ে ফুলের টোকা দিয়েছি, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি করেছি। শান্তিতে থাকতে চাইলে আইভীকে বেছে নেবেন। ভয় পাবেন না।’ 

স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, বিগত ১৮ বছরের না পাওয়ার ক্ষোভ থেকেই এ নগরীর মানুষ আমাকে ভোট দেবে। আমার সঙ্গে শুধু বিএনপি নয়, সব দলের নেতাকর্মীরা রয়েছে। আমি সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ভোট পাব। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এতদিন পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি। এখন যারা রাজনীতিবিদ তাদের মাদক ব্যবসায়ী বানিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে। এই অবস্হার অবশ্যই নিরসন করতে হবে। 

তিনি পুলিশি হয়রানি বন্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ দাবি করে বলেন, গ্রেফতার, হয়রানি বন্ধ করা না হলে জনগণ এই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করবে। নারায়ণগঞ্জ রাজনীতির সূতিকাগার। আপনি নারায়ণগঞ্জকে চেনেন এবং জানেন। আপনাকে আমরা সবিনয়ে অনুরোধ করছি, এই নির্বাচনে যেন নারায়ণগঞ্জের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটে, নারায়ণগঞ্জের মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন। কোনো কারণে কোনো ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলনে যেন বিঘ্ন না ঘটে। এতে আপনার সুনাম বৃদ্ধি পাবে এবং ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। 

নির্বাচিত হলে উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তৈমূর আলম বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে আমরা গণমুখী সিটি করপোরেশনে পরিণত করব। এই নগরী হবে একটা নিরাপদ ও আধুনিক নগরী। যে নগরীতে থাকবে সব সুযোগ-সুবিধা। এই নগরী হবে একটা অসাম্প্রদায়িক নগরী। 

প্রতিদিনের মতো গতকালও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা নারায়ণগঞ্জে এসে নৌকার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেন। এছাড়া যুবলীগ, ছাত্রলীগ, যুব মহিলা লীগ, সেচ্ছাসেবক লীগসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। শেষ মুহূর্তের