শেখ হাসিনার চরিত্রে অভিনয় আমার জীবনের বড় প্রাপ্তি : হিমি

আমি তখন বিটিভির একটি নাটকের শুটিং করছিলাম। আমি জানতাম না অডিশন হচ্ছে। তখনই বিটিভির মাহবুবা ফেরদৌস আপা বললেন, হিমি, তুমি অডিশন দিয়ে দেখতে পারো। চলচ্চিত্রে অনেক বড় একটা কাজ হচ্ছে। যদি অডিশন দিয়ে নির্বাচিত হও, তাহলে তো ইতিহাসের অংশ হতে পারবে। এরপর অডিশন দিই। ভয়ে ভয়েই দিলাম। ফাইনালি আমি আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করতে যাচ্ছি এটা আমার কাছে স্বপ্ন মনে হচ্ছে- কথাগুলো বলছিলেন হিমি।

মুজিববর্ষের সূচনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন-নির্ভর কাহিনিচিত্র বা বায়োপিকের শুটিং শুরু হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত এই ছবিটি পরিচালনা করছেন শ্যাম বেনেগাল। ছবির শেখ মুজিব কন্যা শেখ হাসিনার বড়বেলার চরিত্রে অভিনয় করবেন জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি। ১ মার্চ বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও যুগ্ম-সচিব নুজহাত ইয়াসমিন স্বাক্ষরিত এই তালিকায় ৫০ জন শিল্পীর নাম প্রকাশ করা হয়েছে। পাশাপাশি তাদের চরিত্রের নামও প্রকাশ করা হয়েছে।

নুসরাত ফারিয়া আপনার চেয়ে বড় হয়েও ছোটবেলার চরিত্রে আর আপনি বড়বেলার চরিত্রে- এমনটা কেন হলো? হিমি বললেন, ‘আমি তো ছোটবেলা থেকে লম্বা, হয়তো দেখতে বড় লাগে কিংবা আমার চেহারার সাথে যে সময়টাকে ধারণ করতে চেয়েছেন পরিচালক সেটা হয়তো যায়- এজন্যই হয়তো আমাকে নির্বাচিত করেছেন। কিন্তু এখনো যেহেতু আমি চিত্রনাট্য পাইনি হাতে, তাই বলতে পারছি না আসলে আমার রোলটা ঠিক কেমন হবে। তবে বিষয়টা আমার কাছে কেমন যেন স্বপ্নের মতো আনন্দ মিশ্রিত ভয় কাজ করছে।’

হিমি বললেন, জাতীয় পর্যায়ের একটা পুরস্কার গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে আমার প্রথম দেখা হয়। তিনি আমার নাম জিজ্ঞেস করেই আমাকে মেডেল পরিয়ে দেন। পরের বছর আবার দেখা হয় একইভাবে পুরস্কার গ্রহণের সময়, তিনি ফের নাম জিজ্ঞেস করেন। আমি বলি হিমি- তিনি হাসেন এবং মেডেল পরিয়ে দেন। এখন যখন ভাবছি প্রধানমন্ত্রীর মেয়েবেলার চরিত্রে অভিনয় করবো তখন অন্য রকম একটা বিষয়।

প্রাথমিক চূড়ান্তের ব্যাপারে বলেন, এখনো চুক্তিবদ্ধ হইনি। তবে আমাকে ফোন করে জানানো হয়েছে। মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি আমি। এটা একটা চ্যালেঞ্জিং চরিত্র বটে। ইতোমধ্যে ইন্টারনেট ঘেঁটে শেখ হাসিনা ম্যামের সেই সময়কার ছবি ও ভিডিও দেখে তাঁর সম্পর্কে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করছি। পরিচালকের সঙ্গে এটা নিয়ে যদি আরও বসতে পারি, তাহলে আরও অনেক বিষয় পরিষ্কার হবে। প্রস্তুতিও ভালো হবে। তবে এটা আমার জীবনের বড় প্রাপ্তি হতে যাচ্ছে।

এর আগে গান, নাচ নিয়ে থাকলেও হিমির শুরুটা একটি রিয়েলিটি শোর মধ্যদিয়ে। ২০১৪ সালে ওই রিয়েলিটি শো’র মাধ্যমে মিডিয়ায় হিমির আগমন ঘটে। এরপর বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করেন হিমি। শুধু ছোট পর্দায় নয়, শুরুতে কলকাতার রেশমী মিত্রের নির্দেশনায় প্রথম চলচ্চিত্রেও অভিনয় করার সুযোগ পান এ তারকা। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘হঠাৎ দেখা’ কবিতা অবলম্বনে হিমি ‘হঠাৎ দেখা’ চলচ্চিত্রে ওপার বাংলার দেবশ্রী রায়ের যুবতী বয়সের চরিত্রে অভিনয় করেন।