শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার অভিনেত্রী!

88
শিক্ষকের
Social Share

সম্প্রতি ছোটবেলার এক ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন দেবলীনা। তিনি জানান, শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার হয়েছেন তিনি। ছোটবেলায় অংকের শিক্ষক তাকে খারাপভাবে স্পর্শ করেছিল। সেই সময় পুলিশের কাছে গিয়ে অভিযোগ জানাতেও চেয়েছিলেন তিনি, তবে বাবা-মা বাধা দেয়।

ভারতীয় টেলিভিশনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী দেবলীনা ভট্টাচার্য। ‘সাথ নিভানা সাথিয়া‘ ধারাবাহিকে গোপী বহুর চরিত্রে অভিনয় করে তারকা খ্যাতি পেয়েছেন। অনেকেই তাকে আদর্শ বউমা হিসেবে জানেন। ধারাবাহিকটির দ্বিতীয় সিজনেও রাখা হয় তাকে। এছাড়া বিগ বসের চলমান সিজনেও পারফর্ম করে আলোচনায় রয়েছেন এই অভিনেত্রী।

দেবলীনা ভট্টাচার্য

‘ফ্লিপকার্ট লেডিজ ভার্সেস জেন্টলম্যান সিজন ২’-এর মঞ্চে দেবলীনা জানান, ‘তিনি খুব ভালো টিচার ছিলেন। সবাই তার কাছে পড়তে যেত। ক্লাসের সব ভালো ছাত্রছাত্রীরা, আমার দুজন প্রিয় বন্ধুও তার কাছেই টিউশন নিত। কিন্তু এক সপ্তাহ পর ওরা আসা বন্ধ করে দেয়। এরপর আমি টিউশনে গিয়েছিলাম এবং তিনি আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। আমি বাড়ি ফিরে মাকে সবটা জানাই। আমরা স্যারের বাড়ি গিয়ে তার বউয়ের কাছে অভিযোগ করি। আমি সত্যিই চেয়েছিলাম কড়া ব্যবস্থা নিতে।’

দেবলীনা

কিন্তু সমাজের ভয়ে তার বাবা-মা পুলিশে অভিযোগ জানাতে রাজি হয়নি। আক্ষেপের সুরে এই অভিনেত্রীর ভাষ্য, ‘সেটা একেবারে অনুচিত কাজ ছিল। প্রত্যেক বাবা-মার উচিত ছেলেমেয়েরা এই ধরণের অভিযোগ জানালে তাদের পাশে থাকা এবং আইনি ব্যবস্থা নেওয়া। প্রত্যেক বাবা-মাকে অনুরোধ জানাচ্ছি দয়া করে সমাজের ভয়ে আপনারা পিছিয়ে থাকবেন না। ব্যবস্থা নেবেন।’

ভারতীয় টেলিভিশনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী দেবলীনা ভট্টাচার্য। ‘সাথ নিভানা সাথিয়া’ ধারাবাহিকে গোপী বহুর চরিত্রে অভিনয় করে তারকা খ্যাতি পেয়েছেন। অনেকেই তাকে আদর্শ বউমা হিসেবে জানেন। ধারাবাহিকটির দ্বিতীয় সিজনেও রাখা হয় তাকে। এছাড়া বিগ বসের চলমান সিজনেও পারফর্ম করে আলোচনায় রয়েছেন এই অভিনেত্রী।

সম্প্রতি ছোটবেলার এক ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন দেবলীনা। তিনি জানান, তিনি জানান, শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার হয়েছেন তিনি। ছোটবেলায় অংকের শিক্ষক তাকে খারাপভাবে স্পর্শ করেছিল। সেই সময় পুলিশের কাছে গিয়ে অভিযোগ জানাতেও চেয়েছিলেন তিনি, তবে বাবা-মা বাধা দেয়।

‘ফ্লিপকার্ট লেডিজ ভার্সেস জেন্টলম্যান সিজন ২’-এর মঞ্চে দেবলীনা জানান, ‘তিনি খুব ভালো টিচার ছিলেন। সবাই তার কাছে পড়তে যেত। ক্লাসের সব ভালো ছাত্রছাত্রীরা, আমার দুজন প্রিয় বন্ধুও তার কাছেই টিউশন নিত। কিন্তু এক সপ্তাহ পর ওরা আসা বন্ধ করে দেয়। এরপর আমি টিউশনে গিয়েছিলাম এবং তিনি আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। আমি বাড়ি ফিরে মাকে সবটা জানাই। আমরা স্যারের বাড়ি গিয়ে তার বউয়ের কাছে অভিযোগ করি। আমি সত্যিই চেয়েছিলাম কড়া ব্যবস্থা নিতে।’

 ভট্টাচার্য

কিন্তু সমাজের ভয়ে তার বাবা-মা পুলিশে অভিযোগ জানাতে রাজি হয়নি। আক্ষেপের সুরে এই অভিনেত্রীর ভাষ্য, ‘সেটা একেবারে অনুচিত কাজ ছিল। প্রত্যেক বাবা-মার উচিত ছেলেমেয়েরা এই ধরণের অভিযোগ জানালে তাদের পাশে থাকা এবং আইনি ব্যবস্থা নেওয়া। প্রত্যেক বাবা-মাকে অনুরোধ জানাচ্ছি দয়া করে সমাজের ভয়ে আপনারা পিছিয়ে থাকবেন না। ব্যবস্থা নেবেন।’

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস