রোহিঙ্গাদের জন্য ভাসানচরের অবকাঠামো প্রস্তুত

আগামী নভেম্বর মাসেই নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার চরঈশ্বর ইউনিয়নের ভাসানচরকে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া যাবে বলে জানা গেছে। এজন্য দ্বীপটিতে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মিত হয়েছে।

কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে এক লাখের পুনর্বাসনের জন্য নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার চরঈশ্বর ইউনিয়নের ভাসানচরকে প্রস্তুত করা হয়েছে। এরই মধ্যে সেখানে রোহিঙ্গাদের থাকা-খাওয়ার জন্য সব প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বৈঠকে উত্থাপিত আশ্রয়ণ প্রকল্প-৩-এর পরিচালক এ এ মামুন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এসংক্রান্ত কার্যপত্রটি নিয়ে আলোচনা শেষে কক্সবাজারের উখিয়া থেকে রোহিঙ্গাদের সেখানে পুনর্বাসনে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।

সংসদীয় কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. মোতাহার হোসেন, মো. নাসির উদ্দিন, মো. মহিববুর রহমান ও নাহিদ ইজাহার খান এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আখতার হোসেন ভূঁইয়া, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদর দপ্তরের লে. জেনারেল মো. সফিকুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, বৈঠকে ভাসানচর আবাসন প্রকল্প নিয়ে একটি মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন ও তা নিয়ে আলোচনা হয়। এ সময় জানানো হয়, ভাসানচরে এক লাখ বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের আবাসন এবং দ্বীপের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। প্রকল্পটির জন্য জিওবি খাত থেকে বরাদ্দকৃত ৪৬২ কোটি ৪৩ লাখ ১০ হাজার টাকা কন্টিজেন্সির জন্য অব্যয়িত রয়েছে। প্রকল্পের নির্মাণ কাজ এরই মধ্যে শেষ করা হয়েছে।