রোজিনা কারাগারে: জেলা-উপজেলায় সাংবাদিকদের বিক্ষোভ-মানববন্ধন

51
Social Share

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করছে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন। আজ বুধবার (১৯ মে) সকাল থেকে এসব কর্মসূচি পালন করেন সাংবাদিকরা।

সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ কয়েকটি স্থানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন মানববন্ধন করছে। এ সময় সাংবাদিক নেতারা অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবি জানান।

এদিকে, রাজধানী ঢাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন সাংবাদিকরা।

ব‌রিশাল নগরীর অশ্বিনী কুমার হল চত্বরে সকা‌লে ব‌রিশাল সাংবা‌দিক ইউ‌নিয়ন এবং শহীদ আব্দুর রব সের‌নিয়াবাত ব‌রিশাল প্রেসক্লা‌বের উদ্যোগে পৃথকভা‌বে বি‌ক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পা‌লিত হ‌য়ে‌ছে।

সাংবাদিক নেতারা রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করার আহ্বান জানান। তাঁরা বলেন, একজন সাহসী সাংবাদিক হিসেবে রোজিনা ইসলাম স্বীকৃত। তাঁর বিরুদ্ধে এ ধরনের মামলা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তাঁর বিরুদ্ধে করা মামলা নিঃশর্তভাবে প্রত্যাহার করতে হবে, সেইসঙ্গে তাঁকে নির্যাতনকারী সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।‌

বি‌ক্ষোভ সমা‌বে‌শে বক্তব্য দেন ব‌রিশাল সাংবা‌দিক ইউ‌নিয়‌নের সভাপতি খন্দকার ম‌নিরুল আলম স্বপন, সুশান্ত ঘোষ, ‌বিধান সরকার, আলী জসীম, এম জসীম উ‌দ্দীন, প্রেসক্লা‌বের সভাপ‌তি ইসমাইল হো‌সেন নেগা‌বান, সাধারন সম্পাদক কাজী মিরাজ মাহমুদ, ব‌রিশাল রি‌পোর্টাস ইউ‌নি‌টির সভাপ‌তি নজরুল বিশ্বাস প্রমুখ।

নড়াইলে শহরের চৌরাস্তায় মানবন্ধনের আয়োজন করে নড়াইলের সাংবাদিক ও প্রথম আলো। সাংবাদিক  রোজিনাকে হেনস্তা ও কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদে সকাল ১০টায় এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মলয় কান্তি  নন্দী, কার্তিক দাস, কাজী হাফিজুর রহমান, সাইফুল ইসলাম তুহিন, খায়রুল আলম, জিয়াউর রহমান জামী, সাথী তালুকদার প্রমুখ। এরপর বেলা ১১টায় নড়াইল প্রেসক্লাবের সামনে অনুরূপ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

নড়াইল প্রেসক্লাবে আয়োজনে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন প্রেসক্লাব সভাপতি এনামুল কবীর টুকু,সাধারন সম্পাদক শামীমূল ইসলাম টুলু, গুলশান আরা,মারুফ সামদানী প্রমুখ।

বক্তারা অবিলম্বে সাংবাদিক রোজিনার বিরুদ্ধে দায়ের করা  মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। তাঁকে হেনস্তা করার ঘটনা চলতে থাকলে লাগাতার আন্দোলনের হুমকি দেন তাঁরা। একইসঙ্গে সরকারি কর্মচারীদের ঘুষ দুর্নীতি উন্মোচন করে বিচারের দাবি জানান তাঁরা।

ফরিদপুরে কর্মসূচি পালিত হয়েছে শহরের নিলটুলী এলাকায় অবস্থিত ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সামনের মুজিব সড়কে। সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ এবং তাঁর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী, ফরিদপুর নাগরিক মঞ্চের সভাপতি আওলাদ হোসেন বাবর, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মিজানুর রহমান মানিক, জেলা সিপিবি সভাপতি কমরেড রফিকুজ্জামান লায়েক, জেলা মহিলা পরিষদ  সভাপতি অধ্যাপক শিপ্রা রায়, নারী নেত্রী আসমা আক্তার মুক্তা, অ্যাডভোকেট শিপ্রা গোস্বামী, প্রথম আলো বন্ধুসভার সভাপতি সুজিত কুমার দাস, সমকাল সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক কাজী সবুজ প্রমুখ।

বক্তারা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানিয়ে অবিলম্বে তাঁর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। একইসঙ্গে তাঁরা দুর্নীতিবাজ হেনস্তাকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান।

এছাড়া অনুরূপ কর্মসূচি পালিত হয়েছে যশোর, গোপালগঞ্জ, জয়পুরহাট, চাঁদপুর, নওগাঁর মান্দা, পটুয়াখালীর গলাচিপা, চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, শরীয়তপুরের জাজিরা, হযরত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নেত্রকোণার পূর্বধলা, যশোরের অভয়নগর, ঢাকার ধামরাইসহ দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায়।

গত সোমবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখার পর নথিপত্র চুরি ও ছবি তুলে নেওয়ার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩৭৯ ও ৪১১ ধারায় এবং অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় মামলা দিয়ে রোজিনাকে শাহবাগ থানায় হস্তান্তর করা হয়।

গতকাল মঙ্গলবার রোজিনাকে আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত তা খারিজ করে দেন। একইসঙ্গে আগামীকাল বৃহস্পতিবার জামিন শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন আদালত।

রোজিনার মুক্তি ও হেনস্তার বিচার দাবি সম্পাদক পরিষদের সচিবালয়ে কর্তব্য পালন করতে গিয়ে প্রায় ছয় ঘণ্টা হেনস্তার পর প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে থানায় সোপর্দ, মামলা দায়ের, সারা রাত থানায় রাখা, আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ডের আবেদন এবং জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর ঘটনায় গভীর উদ্বেগ, ক্ষোভ প্রকাশ, তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সম্পাদক পরিষদ।

এছাড়া সাংবাদিক সংগঠনের নেতা ও মানবাধিকার সংগঠনের নেতারা এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবি করেছেন।