রাতের লন্ডনে উবারে চড়ে ‘ভয়ঙ্কর বিপদে’ সোনম কাপুর!

‘আসছি’ বলেও রাইড ক্যানসেল, যাত্রীর সঙ্গে অকারণ ‘দুর্ব্যবহার’ এমনকি ধর্ষণ, শ্লীলতাহানির মত গুরুতর অভিযোগ প্রায়শই শোনা যায় বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে ভাড়া করা ট্যাক্সি ও ক্যাব চালকদের বিরুদ্ধে। এবার লন্ডনে উবারে ট্যাক্সি বুক করে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির শিকার হলেন অভিনেত্রী সোনম কপূর।

ঠিক কী হয়েছে সোনমের সঙ্গে? বৃহস্পতিবার নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে সোনম লিখেছেন, ‘উবার ট্যাক্সিতে লণ্ডনে এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে আমাকে। প্লিজ, প্লিজ আপনারা সবাই সাবধান থাকবেন। নিরাপদ থাকার জন্য অ্যাপের মাধ্যমে ভাড়া করা ট্যাক্সি বা ক্যাব নয়, লোকাল ট্রান্সপোর্ট ব্যবহার করুন। আই অ্যাম সুপার শেকেন।’

এর পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শোরগোল। কী এমন হল অভিনেত্রীর সঙ্গে যে এতটা ভয় পেয়ে গিয়েছেন তিনি? এক টুইটার ব্যবহারকারী সেকথা অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসা করতেই তিনি বলেন, ‘গাড়ির চালক একেবারেই স্বাভাবিক ছিলেন না (আনস্টেবল)। প্রথম থেকেই অকারণে ভীষণ জোরে চিৎকার করছিল সে। আমি ভয়ে কাঁপছিলাম।’ তবে ‘আনস্টেবল’ মানে তিনি মত্ত অবস্থা বোঝাতে চেয়েছেন কি না, সে বিষয়ে বিশদ জানাননি অভিনেত্রী।

প্রিয় অভিনেত্রী এ রকম ঘটনার সম্মুখীন হওয়ায় ফ্যানেরাও চিন্তিত। এক জন লিখেছেন, ‘খুব খারাপ লাগছে শুনে। আমিও কিছু দিন আগে ঠিক একইরকম ঘটনার সম্মুখীন হয়েছি, লন্ডনেই।’ আর একজনের বক্তব্য, ‘শুধু লন্ডনেই নয়, ভারতেও এ রকম ঘটনা দেখতে পাওয়া যায়।’

উবারের তরফ থেকেও ক্ষমা চাওয়া হয়েছে অভিনেত্রীর কাছে। সোনমের ওই টুইটের প্রত্যুত্তরে উবার লিখেছে, ‘খুব খারাপ লাগছে সোনম। আপনার ব্যক্তিগত ইমেল আইডি থেকে আমাদের অভিযোগ জানান। যত শীঘ্র আমরা ব্যবস্থা নেব।’

ঘটনা এখানেই শেষ নয়। সোনম পাল্টা টুইট করে ওই সংস্থাকে বলেন, ‘বহু বার আপনাদের অভিযোগ জানানোর চেষ্টা করেছি। কোনও লাভ হয়নি। প্রত্যেক বার ‘বট’ রিপ্লাই দিয়েছে। ইউ গাইজ নিড টু আপডেট ইওর সিস্টেম। যা ক্ষতি হওয়ার হয়ে গিয়েছে। এখন আর আপনারা কী করবেন?’

গত বছর থেকেই বিভিন্ন কাজের জন্য মাসে বেশ কিছু বার লন্ডন যেতে হয়েছে অভিনেত্রীকে। তবে এ ধরনের ঘটনার সম্মুখীন হলেন এই প্রথম বার।

সোনম কাপুরের স্বামী আনন্দ আহুজার লন্ডনে একটি বাড়ি রয়েছে। প্রায়ই তাই লন্ডন যান সোনম। শেষ ক্রিসমাসও তিনি সেখানে কাটিয়েছেন। এবারও সেখানেই গিয়েছিলেন সোনম। তখনই ‘ভয়াবহ ঘটনা’ ঘটে তাঁর সঙ্গে। যদিও এই প্রথম নয়। এমাসের গোড়ার দিকেও একটি খারাপ ঘটনা ঘটে তাঁর সঙ্গে।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বিরুদ্ধে অভিনেত্রী অভিযোগ তোলেন, তারা নাকি অভিনেত্রীর ব্যাগ হারিয়েছে। টুইটারে সোনম লেখেন, ‘একমাসে তিন বারের মধ্যে দুবারই ব্যাগ হারাল। কোনও দায়িত্ব নেই ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের। আর কোনও দিনও এই এয়ারলাইন্সে সফর করব না।’

যদিও ঘটনার পর ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ তাঁর কাছে ক্ষমা চেয়ে নেয়। টুইটে তারা লেখে, ‘যা হয়েছে, সেটা অভিপ্রেত নয় কখনওই। আমরা ক্ষমাপ্রার্থী। তবে ব্যাগ হারানোর আবেদনপত্র জমা পড়ে গেলে সব সময় মতো হবে।