রাখাইনে সেনাসহ সরকারি লোকদের ফেরি বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে, তারপর …

মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলে গত শনিবার বিকেলে ফেরিতে চড়ে যাওয়ার সময় যাত্রীরা কল্পনাই করতে পারেননি যে, তারা কী ধরনের বিপদে পড়তে যাচ্ছেন। যদিও কিছু সময় পর তাদের মধ্যে কয়েকজন বেঁচে ফিরেছেন।

জানা গেছে, গত শনিবার বিকেলে ফেরিতে করে নদী পার হয়ে যাচ্ছিলেন বেশ কয়েকজন সেনাসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী। ওই সময় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাদের ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে বিদ্রোহী গোষ্ঠী।

তারা তিনটি নৌকায় করে সবাইকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে হেলিকপ্টার থেকে গুলি চালাতে থাকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এতে করে দুই পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ শুরু হয়।

পরে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, বন্দি ৫৮ জনের মধ্যে ১৪ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। অন্যদিকে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর দাবি, হেলিকপ্টার থেকে চালানো গুলিতে বেশ কয়েকজন প্রাণ হারিয়েছেন। তবে আরো অনেকেই প্রাণে বেঁচে আছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে রাখাইন রাজ্যে। মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলের এই রাজ্যে ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা মুসলমানদের গণহত্যা চালানোর অভিযোগ রয়েছে সে দেশের সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধদের বিরুদ্ধে।