মোদির জন্য প্রস্তুত টুঙ্গিপাড়া ও ওড়াকান্দি

57
Social Share

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে ঘিরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া ও মতুয়াদের প্রধান তীর্থপীঠ কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দি সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আগামী ২৭ মার্চ তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন। পরে শ্রীধাম ওড়াকান্দিতে মতুয়াবাদের প্রবর্তক হরিচাঁদ ঠাকুরের হরিমন্দিরে পূজা দেবেন। এছাড়া ওড়াকান্দিতে ঠাকুর পরিবারের সদস্য ও মতুয়া প্রতিনিধিদের সঙ্গে তার মত বিনিময় করার কর্মসূচি রয়েছে।

নরেন্দ্র মোদির সফরকে ঘিরে টুঙ্গিপাড়া ও ওড়াকান্দিকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। ওড়াকান্দিতে ৪টি হেলিপ্যাড নির্মাণ, সড়ক নির্মাণ ও সংস্কার, পরিষ্কার-পরিছন্নতা, গ্রিন রুম ভিআইপি লাউঞ্জ নিমার্ণের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। এছাড়া ওড়াকান্দির সব মন্দির, গেস্ট হাউসের সৌন্দর্য বর্ধণ করা হয়েছে। ওড়াকান্দিকে সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। সেখানে সর্বসাধারণের প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। নরেন্দ্র মোদির এ সফরকে ঘিরে মতুয়াদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। ২৭ মার্চের সেই মাহেন্দ্রক্ষণের প্রতীক্ষা করেছেন মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ২৬ মার্চ বাংলাদেশ সফরে আসছেন। পরের দিন ২৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও কাশিয়ানীর উপজেলার শ্রীধাম ওড়াকান্দি পরিদর্শন করার কথা রয়েছে নরেন্দ্র মোদির। সেখানে তিনি শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের হরিমন্দিরে পূজা অর্চনা শেষে বিশেষ প্রার্থনায় অংশ নেবেন। ভারতের সরকার প্রধানের এ সফরকে সফল করতে প্রস্তুতির সবধাপ বিভিন্ন বিভাগ সমন্বয় করে সম্পন্ন করেছে।

বাংলাদেশ মতুয়া মহা সংঘের সংঘাধিপতি ও মতুয়ামাতা সীমা দেভী ঠাকুর বলেন, আমরা জেনেছি আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশে আসছেন। তার ওড়াকান্দি হরি মন্দিরে পূজা দিতে আসার কথা রয়েছে। তার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ওড়াকান্দিতে আসার আমন্ত্রণ যানাচ্ছি। এছাড়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী ঠাকুর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ওড়াকান্দি প্রস্তুত।

মতুয়া অনুসারী ডা. অসিত বরণ রায় বলেন, ‘নরেন্দ্র মোদির ওড়াকান্দি সফরকে কেন্দ্রে করে আমাদের মধ্যে নব জাগরণের সৃষ্টি হয়েছে। এ সফরের মধ্য দিয়ে আমাদের দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।’

মতুয়া ভক্ত টুঙ্গিপাড়া উপজেলার দাড়িয়ারকূল গ্রামের প্রবীর বিশ্বাস বলেন, ‘ আমরা বিশ্বাস করি হরিচাঁদ অবতার রূপে আর্বিভূত হয়েছেন। হরিচাঁদ ঠাকুরের লীলা ভূমি ওড়াকান্দি অবহেলিত ও দলিত মতুয়া সম্প্রদায়ের তীর্থ। প্রতি বছর ১০ লাখ মতুয়া ভক্ত পুণ্যলাভের আশায় বরুনীর দিনে এ তীর্থে এসে স্নান করেন। এখানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আসবেন এতে আমরা গর্বিত। আমার তাকে হৃদয়ের অর্ঘ্য দিয়ে অভিনন্দন জানাবো। সেই মাহেন্দ্র ক্ষণের জন্য আমরা অপেক্ষার প্রহর গুনছি।’

গোপালগঞ্জ এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এহসানুল হক জানান, ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়িতে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে জরুরি ভিত্তিতে ৪টি হেলিপ্যাড, ঠাকুর বাড়ির অভ্যন্তরে ৫শ’ মিটার এইচবিবি সড়ক, ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের তিলছড়া থেকে ওড়াকান্দি পর্যন্ত ৮ কি. মি. ও রাহুথড় সড়ক থেকে ওড়াকান্দি প্রবেশের জন্য ৬’ শ মিটার পাকা সড়ক সংস্কার করা হয়েছে। এছাড়া জেলা প্রশাসন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, গণপূর্তসহ বিভিন্ন বিভাগের সমন্বয়ে প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর সফল করতে আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। নিচ্ছিন্দ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ওড়াকান্দিতে আমরা একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ স্থাপন করেছি। সেখান থেকে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে গোটা ওড়াকান্দি পর্যবেক্ষণ ও আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।’

গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, ‘জাতির পিতার জম্ম শতবর্ষ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে টুঙ্গিপাড়ায় তার সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। এ কারণে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্স নতুন সাজে সাজানো হয়েছে। এই সফরকে সফল করতে ইতোমধ্যেই সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।’