মেহেরপুরের ঐতিহ্যবাহী ল গার্ডেন: প্রগতি , সংগ্রাম ও প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম আইন পেশায় প্রদীপ্ত শিখা

62
Social Share

মেহেরপুরের ঐতিহ্যবাহী ‘ল গার্ডেন ঘিরে আইন পেশা বিকাশে এক শতাব্দী মুহম্মদ রবীউল আলম মেহেরপুরের আইনসেবা ও সাংস্কৃতিক চর্চায় হোটেলবাজারস্থ ঐতিহ্যবাহী ‘ল গার্ডেন’ যুগান্তকারী ভুমিকা রেখে চলেছে। দাদা স্বর্গীয় নলীনাক্ষ ভট্টাচার্য, বাবা স্বর্গীয় প্রভাস ভট্টাচার্য এবং সন্তান পল্লব ভট্টাচার্য ও প্রলয় ভট্টাচার্য তন্ময় একই ধারা অব্যাহত রেখেছেন। মেহেরপুরের সর্বস্তরের মানুষ এই পরিবারের প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল। এক‘শ তিন বছর ধরে এই এলাকার মানুষ এই পরিবার থেকে আইন ও সাংস্কৃতিক সেবা পেয়ে আসছে।

গত ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে পল্লব ভট্টাচার্য তাদের ‘ল গার্ডেন’ বাড়ির শতবর্ষ পালন করেছেন। পারিবারিক আইন পেশায় শতবর্ষ টিকে থাকা মেহেরপুরের ইতিহাসে একটি ইতিহাসই বটে। মেহেরপুরের মোনাখালী গ্রাম থেকে দীর্ঘ এক শতাব্দী পূর্বে এই বনিয়াদি পরিবারটি উঠে এসে পৌরসভার হোটেল বাজারে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করে। সম্ভ্রান্ত ও ঐতিহ্যবাহী এই পরিবারের অন্যতম সন্তান স্বর্গীয় নলীনাক্ষ ভট্টাচার্য(১৯১৩-১৯৬৭) আইন পেশায় যুক্ত হন। তিনি মেহেরপুর বার কাউন্সিলের সভাপতি ছিলেন। পরবর্তীতে তার জেষ্ঠ সন্তান স্বর্গীয় প্রভাস ভট্টাচার্য বাবার আইন পেশার সাথে যুক্ত হয়ে দীর্ঘ সময় মেহেরপুর কোর্টে আইন ব্যবসা পরিচালনা করে পারিবারিক খ্যাতি ও সুনাম বৃদ্ধি করেন। তিনি এই পেশাকে ভালবেসে এবং এই পেশার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে পৈতৃক বাড়িটি “ল-গার্ডেন” নাম করণ করেন। স্বর্গীয় এ্যাড. প্রভাস ভট্টাচার্য তার জীবদ্দশায় জেলার সকল প্রগতিশীল সংগঠন ও আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি মেহেরপুর পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হন। আইন ব্যবসার পাশাপাশি তিনি তার দুই ছেলেকে আইন পড়ান। তার জেষ্ঠ সন্তান এ্যাড. পল্লব ভট্টাচার্য তরুণ জেলা জর্জ কোর্টে সফলতার সাথে আইন ব্যবসা পরিচালনা করছেন। তিনি জেলা বার এ্যসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি। তিনি বর্তমানে মেহেরপুর জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

পল্লব ভট্টাচার্য তরুণ আমার বন্ধু। একসাথে আমরা স্কুলে পড়েছি। একসাথে ধারাপাত খেলাঘর করেছি। তার সাম্প্রতিক কাজে আমি মুগ্ধ। সে মেহেরপুরের জন্য বেশ কাজ করছে। তার ভিতেরে যে উদারতা দেখেছি তাতে আমি খুশি হয়েছি।এগিয়ে যাও বন্ধু।এগিয়ে যাও। তোমাদের দ্বারাই মেহেরপুরে কিছু হবে। “ল-গার্ডেন”- এর দ্বিতীয় সন্তান প্রলয় ভট্টাচার্য তন্ময় রাজশাহী বিশাববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে বি.এ সম্মান সহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। বর্তমানে হাউস বিল্ডিং কর্পোরেশনের আইন বিষয়ক উদ্ধতন কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত আছেন। তন্ময়কে ছোটবেলা থেকেই চিনি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতে তাকে নিকট থেকে দেখেছি। এলাকার মানুষের প্রতি তার যথেষ্ট ভালবাসা রয়েছে। এই পরিবারের আরেকজন সদস্য ননীগোপাল ভট্টাচার্য। তিনি মেহেরপুরের সাংষ্কৃতিক অঙ্গনের উজ্জল নক্ষত্র।

এই পরিবারেই ১৯৩৫ সালে জন্মগ্রহন করেন ননীগোপাল ভট্রাচার্ষ। তিনি চমৎকার সংগীত পরিবেশন করেন এবং চমৎকার কবিতা রচনা করেন। তিনি ১৯৭১সালের ১৭ এপ্রিলে মুজিবনগরে শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে গীতা পাঠ করেছিলেন। পূর্ব পরুষের পেশাকে এমনভাবে আপন করে নেওয়ার দৃষ্টান্ত সচরাচর দেখা যায় না। “ল-গার্ডেন”- এ প্রসঙ্গে এ্যাড পল্লব ভট্টাচার্য “ল-গার্ডেন” পরিবারের সুনাম, ঐতিহ্য ও মঙ্গলার্থে এলাকাবাসী তথা দেশবাসীর কাছে শুভ কামনা প্রার্থনা করেছেন। তিনি প্রার্থনা করেন যেন পরিবারের সুনাম ধরে রাখতে কোন বিপথগামী তাকে মুগ্ধ না করে। এই পরিবারের প্রতি মেহেরপুরবাসী চিরকৃতজ্ঞ। আমরা আশা করবো শতাব্দীর শতাব্দী ধরে এই পরিবারটি এ আঞ্চলের আইন ও সাংস্কৃতিক সেবা অব্যাহত রাখুক।