“মৃত্যুঞ্জয়ী তুমি হে পিতা” নামক কবিতার বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

70
Social Share

জাতীয় ডেস্কঃ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনাতে একটি কাব্যগন্থ প্রকাশিত হয়েছে। কাব্যগন্থ্যে দেশীয় কবিদের একশত কবিতার যৌথ প্রকাশিত “মৃত্যুঞ্জয়ী তুমি হে পিতা” নামক একটি কবিতার বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

 

শনিবার (২৮ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর বিজয়নগর পল্টন টাওয়ারের কনফারেন্স হলে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জয়বাংলা সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদ নামক একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন। জয়বাংলা সংগঠনের আহ্বায়ক ফারুক প্রধানের সভাপতিত্বে এবং গোবিন্দলাল সরকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা। দেশীয় কবিদের মিলন মেলার এই অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদেরকে ধন্যবাদ জানান সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহারুল ইসলাম টিটু। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী মোঃ শাহজাহান খান এমপি। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মোঃ শওকত আলী, বাংলা একাডেমির পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি ও ছড়াকার আনজীর লিটন, সব্যসাচী লেখক ও জাদুশিল্পী শিকদার আব্দুস সালাম, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সচিব মোঃ আসাদুজ্জামান, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ফকরুল ইসলাম নিলয়, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ফকরুল ইসলাম নিলয়, প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জয়বাংলা সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক কবি শাহ আলম চুন্নু এবং শ্রদ্ধাঞ্জলি পাঠ করেন বঙ্গবন্ধু কবিতা পরিষদের সভাপতি নাহিদ আফরোজ লিজা। অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসে অংশগ্রহণ করে কবিতা আবৃতি করেন একঝাঁক নবীন-প্রবীন কবি। যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কবি ইউসুফ রেজা, ফয়জুল আলম পাপ্পু, লুৎফুন আহসান বাবু, মানিক চক্রবর্তী, রণজিৎ মোদক, রতন চক্রবর্তী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারনে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন দেশ আমরা পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুর যদি জন্ম না হতো তাহলে হয়তোবা আমরা কোন দিনই স্বাধীনতা পেতাম না। তাই তাকে স্বরন করা, তার আদর্শকে বুকে ধারন করে চলা আমাদের এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নৈতিক দায়িত্ব। বক্তব্যে মোঃ শওকত আলী বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিবিসির একটি সংবাদের উদধৃতি দিয়ে বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন রাজনৈতিক ভাবে দক্ষ তবে প্রশাসনিক ভাবে দ্বিতীয় শ্রেণীর অর্থাৎ তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের অধিকার আদায়ের জন্যে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন। তার মতো এমন ত্যাগ আর কোন নেতার পক্ষে দেয়া সম্ভব হয়নি। এসময়ে তিনি আরো বলেন, বাঙালী জাতি স্বাধীনতা লাভের মাত্র ১ বছরের মধ্যে একটি আধুনিক সংবিধান পেয়েছে, তা কেবল বঙ্গবন্ধুর জন্যেই সম্ভব হয়েছে, যা পৃথিবীতে আর কোথাও সম্ভব হয়নি তাই তাকে সম্মান করা জাতির দায়িত্ব ও কর্তব্য। এর পর তিনি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা একটি কবি আবৃত্তি করেন। অনুষ্ঠান শেষে সংগঠনের নতুন কমিটি ঘোষণা করেন কবি ও সংগঠক বাংলাদেশ আওয়ামী বাস্তহারা লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাশেদ হাওলাদার।

এবিষয়ে বাহারুল ইসলাম জানান, আমরা জয়বাংলা সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে আছি এবং যতদিন বেঁচে থাকবো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নীতি আদর্শকে বুকে ধারন করে এই সংগঠনের জন্যে কাজ করে যাবো। এসময় তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন ত্যাগী রাজনৈতিকবীদ রাশেদ হাওলাদার ভাইয়ের হাত ধরে আমরা নতুন কমিটি পেয়েছি, এই কমিটিতে আমরা সবাই খুশি এবং সবাই একসাথে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মেনে বাংলাদেশের শিক্ষাও সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।