মুশফিকের মতো আমার পরিবারও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছিল : মাহমুদউল্লাহ

সব ঠিক থাকলে আগামীকালই পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে উড়াল দেবে বাংলাদেশ দল। নিরাপত্তা শংকা এবং পরিবার রাজি না হওয়ায় এই সফর থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। জাতীয় দলের সতীর্থের বাইরেও ‘মি. ডিপেন্ডেবল’ এর সঙ্গে আত্মীয়তা আছে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। তারা দুজন ‘ভায়রা-ভাই’। আজ সফরপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এসে বাংলাদেশ অধিনায়ক জানালেন, পরিবারকে রাজি করানো তার জন্যও কঠিন ছিল। শেষ পর্যন্ত তিনি বোঝাতে পেরেছেন।

মঙ্গলবার মিরপুর মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘শুরুতে একটু কঠিন ছিল। আমার পরিবারও চিন্তিত ছিল। পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। ওরা রাজি হয়েছে। এদিক থেকে কিছুটা স্বস্তি। পরিবার হয়তো অতটা উদ্বিগ্ন থাকবে না। আমাদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। মুশির (মুশফিক) সিদ্ধান্তকে সমর্থন করি। পরিবার নিয়ে ভাবনা থাকে সব সময়ই। পরিবারের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারও কিছু হতে পারে না। মুশির সিদ্ধান্তের প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন থাকবে।’

মাহমুদউল্লাহ বললেন, রাত পোহালেই যেখানে বিমানে উঠতে হবে, সেখানে নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তা করে কোনো লাভ নেই। বুধবার রাতে ভাড়া করে বিশেষ বিমানে লাহোরে রওনা দেওয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। মাহমুদউল্লাহর ভাষায়, ‘এই মুহূর্তে বলতে পারি এটা নিয়ে কেউ চিন্তিত নয়। সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে, শুধু খেলার কথাই চিন্তা করছি। ওখানে কীভাবে ভালো করব জিতব, সেটা নিয়েই ভাবছি। তারা টি-টোয়েন্টি সংস্করণে ধারাবাহিক ভালো খেলছে। আমরা যেভাবে খেলছি গত সিরিজে কিংবা সবশেষ কয়েকটা সিরিজ, তাতে সিরিজ জয়ের জন্য আশাবাদী।’