মানিক মিয়া ব্যবসায়িক স্বার্থরক্ষায় সংবাদমাধ্যমকে ব্যবহার করেননি: তথ্যমন্ত্রী

41
Social Share

জাতির মনন তৈরিতে গণমাধ্যমের ভূমিকাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বর্ণনা করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘গণমাধ্যম সমাজকে যেমন সঠিকখাতে প্রবাহিত করতে পারে, তেমনি চেষ্টা করলে ভিন্নখাতেও প্রবাহিত করতে পারে। বহু সংগ্রামের পথ ধরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ রচনার পথে সংবাদপত্র জগতের পথিকৃৎ তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াসহ নিবেদিতপ্রাণ বহু মানুষের অবদান চিরোজ্জ্বল।

মঙ্গলবার ( ১ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া’র ৫২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতি, বাংলাদেশ’ আয়োজিত ‘মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া ও দৈনিক ইত্তেফাক এর ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া ব্যক্তি বা ব্যবসায়িক স্বার্থরক্ষার জন্য সংবাদমাধ্যমকে ব্যবহার করেননি, তার কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।’

তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াকে স্মরণ করে ড. মাহমুদ বলেন, একটা সময় ছিল যখন পত্রিকা বলতে ইত্তেফাকসহ দু-একটি পত্রিকাকেই বোঝাত। তবে সেগুলোর মধ্যে ইত্তেফাক সবচেয়ে বেশি প্রমিনেন্ট ছিল। তখন মানুষের শোষণ বঞ্চনা তুলে ধরা এবং জনগণকে প্রতিবাদ মুখর করার ক্ষেত্রে ইত্তেফাকের ভূমিকা ছিল অনবদ্য। আর সেই ইত্তেফাকের সম্পাদক ছিলেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া। স্বাধীনতার ৫০ বছরে এসে আজকে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।

বিশ্বখ্যাত ব্লুমবার্গ পত্রিকায় সদ্য প্রকাশিত নিবন্ধন ‘দক্ষিণ এশিয়ার উচিত তাদের ব্যতিক্রমী তারকাটির দিকে নজর দেয়া’ (সাউথ এশিয়া শুড পে অ্যাটেনশন টু ইটস স্ট্যান্ডআউট স্টার) উদ্ধৃত করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই স্টার হচ্ছে বাংলাদেশ। নিবন্ধটিতে লিখেছে, ভারত ও পাকিস্তানের উচিত তাদের একসময়কার স্বল্পোন্নত প্রতিবেশি বাংলাদেশের কাছ থেকে দ্রুত উন্নয়নের মন্ত্র শেখা। ১৯৭১ সালে পাকিস্তান বাংলাদেশের চেয়ে ৭০% বেশি ধনী ছিল আর এখন বাংলাদেশ তাদের চেয়ে ৪৫% বেশি ধনী। আর বাংলাদেশের মন্ত্রিপরিষদ সচিব ক’দিন আগে জানিয়েছেন সেদেশের মাথাপিছু আয় ভারতকে ছাড়িয়ে এখন ২ হাজার ২২৭ ডলার।’

স্বাধীনতার ৫০ বছর পর আজকে বাংলাদেশ সব সূচকে পাকিস্তানকে এবং অনেক ক্ষেত্রে ভারতকেও ছাড়িয়ে গেছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘দু:খের বিষয়, এই উন্নয়ন-অগ্রগতি অনেকে দেখেও দেখে না, বুঝেও বোঝে না। তাদের রাজনীতিটা শুধু বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের মধ্যে আটকে আছে। দেশের মানুষের স্বাস্থ্য কিম্বা উন্নয়ন অগ্রগতি নিয়ে তারা কোনোভাবেই চিন্তিত বলে মনে হয় না। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবসহ বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো, বহু শিক্ষিত লোক তাদের দলে আছে, তারা যেন সমালোচনা করার আগে ব্লুমবার্গের আজকের আর্টিকেলটিসহ বিশ্ব গণমাধ্যমে বাংলাদেশের উন্নয়নচিত্র দেখে নেয়।’

এস এম জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিক রোববারের সাবেক সম্পাদক ও মানিক মিয়া ফাউন্ডেশনের মহাসচিব সৈয়দ তশাররফ আলী, রাজনীতিক মো: নাসিরুল হক, সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন কুসুম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।