চট্টগ্রামের উন্নয়নের স্বার্থে মহিউদ্দিন চৌধুরী মানবিক চরিত্রের সাহসী নেতা

৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী’র স্মরণ সভায় বক্তারা

83
মহিউদ্দিন
Social Share

চট্রগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টলবীর এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকীর স্মরণ সভায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালাম বলেছেন, মহিউদ্দিন ছিলেন চট্টল প্রেমিক। তিনি চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য লড়াই সংগ্রাম করেছেন উল্লেখ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন চট্টগ্রামের যে উন্নয়ন হচ্ছে এসবই ছিল মহিউদ্দীন চৌধুরী উন্নয়নের কর্মসূচীর অধ্যায়।

তিনি বলেন চট্টগ্রাম আজ অভিভাবক শূন্য, সৌহাদ্যপূর্ন রাজনীতি নেই। যে যেভাবে পারছে নেতার আসনে বসে নিজেদের পকেটের উন্নয়ন করছে। মহিউদ্দীন চৌধুরী কিন্তু সেই চরিত্রের নেতা ছিলেন না, তিনি কর্মীদের নেতা ছিলেন এবং কর্মীদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন।
মূখ্য অলোচক বক্তব্যে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত শিক্ষাবিদ প্রফেসর হাসিনা জাকারিয়া বেলা বলেন, মহিউদ্দীন চৌধুরী শুধু নেতা ছিলেন না তিনি গরীব-দুঃখী-মেহনতী মানুষের বন্ধু ছিলেন। তাঁহার হৃদয়ে মানবিক শব্দটি বরাবরই সমৃদ্ধ ছিল বলেই চট্টগ্রামের আমজনতা মহিউদ্দিন চৌধুরীর শূন্যতা অনুভব করছেন। নতুন প্রজন্মর রাজনৈতিক কর্মীদের মহিউদ্দীন চৌধুরীর রাজনীতি ও আদর্শ থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী বলেন, শিক্ষা ও ধার্মিকতায় মহিউদ্দীন চৌধুরী ছিলেন অপ্রতিরোধ্য একজন মহামানব। মানবিকতার কাজের জন্য তিনি যুগ যুগ ধরে চট্টগ্রামের মানুষের হৃদয়ে অমর হয়ে থাকবেন। চসিক প্রাক্তন প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর অধ্যাপক রেখা আলম চৌধুরী বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে মহিউদ্দীন চৌধুরী চট্টগ্রামে বিজয় মেলার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এই বিজয় মেলার মাধ্যমে তিনি মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মানুষের কাছে চিরঞ্জীব থাকবেন।

সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির চট্টগ্রাম জেলার প্রেসিডেন্ট ডাঃ সালেহ আহমেদ সুলোমান বলেন, মহিউদ্দীন চৌধুরী ছিলেন শ্রমিকবান্ধব নেতা। শ্রমিক ও নিজ দলের কর্মীদের দুঃখ বুঝতেন এবং তাদের পাশে থাকতেন। এখনকার সময়ের নেতাদের সাথে কর্মীদের ব্যবধান ও বৈষম্য থাকার কারণে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরে অনুপ্রবেশকারীদের আগমন ঘটছে। তিনি বলেন মহিউদ্দিন চৌধুরীর আদর্শ বাস্তবায়ন করতে হলে সবাইকে চট্টগ্রামকে ভালোবাসতে হবে ও দেশরতœ শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে চট্টগ্রামের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে।
মুক্তিযোদ্ধা এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী স্মরণসভা কমিটি ও বঙ্গবন্ধু একাডেমি কেন্দ্রীয় কমিটির যৌথ আয়োজনে গতকাল ১ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ-সভাপতি প্রনবরাজ বড়–য়া, বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী যুব মহিলা লীগ আহ্বায়ক অধ্যাপিকা সায়রা বানু রৌশনী, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রাক্তন সদস্য ছাবের আহমদ চৌধুরী, গেরিলা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দীন আহমেদ, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী মর্জিনা আক্তার লুচি, ব্যবসায়ী নেতা মোঃ ওসমান গণি, আওয়ামী লীগ নেতা আলী নেওয়াজ, অধ্যাপক শিবপ্রসাদ, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম খান, মুক্তিযোদ্ধা বাদশা মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা দুলাল কান্তি বড়–য়া, মুক্তিযোদ্ধা বিজয় ধর, ব্যাংকার ফাতেমা আক্তার, আকবর হোসেন কবি, প্রকৌশলী আয়েশা ছিদ্দীকা রুমি, হাজী ইউনুস সওদাগর, শিল্পী অচিন্ত্য দাশ, হানিফুল ইসলাম, দিল আফরোজ নবী, সাংস্কৃতিক সংগঠক সৈয়দ দিদার আশরাফী, আবৃত্তি শিল্পী দিলরুবা খানম, সাংবাদিক হারুন রশিদ, সজল দাশ, রিমন মুহুরী, আসিফ ইকবাল, রাশেদা আক্তার সুমি, লায়ন ইসমিন আক্তার, শিল্পী শিউলী আক্তার, নুপুর আক্তার, কাকলী দাশগুপ্তা, আঞ্জুমান আরা, কাজী আইয়ুব, মোঃ তিতাস, ইউনুস মিয়া, ছাত্রলীগ নেতা মঞ্জুরুল আলম, রতন ঘোষ, জিএম পারভেজ প্রমুখ।