ভুল তথ্য সরবরাহ, নুসরাতের বিরুদ্ধে তদন্ত চেয়ে স্পিকারকে চিঠি বিজেপি সাংসদের

44
Social Share

টলিউড অভিনেত্রী ও পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহানের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বিতর্ক থামছেই না। এবার তার বিরুদ্ধে এথিকস কমিটির তদন্ত চেয়ে লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লাকে চিঠি লিখলেন উত্তরপ্রদেশের বদায়ুনের বিজেপি সাংসদ সংঙ্ঘমিত্রা মৌর্য।

সংঙ্ঘমিত্রার অভিযোগ, নিজের বৈবাহিক জীবন নিয়ে সংসদে ভুল তথ্য প্রদান করেছেন নুসরাত। আর তাই বসিরহাটের সাংসদের বিরুদ্ধে এথিকস কমিটির তদন্ত হোক। গত গত ১৯ জুন চিঠিটি লেখেন সংঙ্ঘমিত্রা মৌর্য।

প্রসঙ্গত, লোকসভার প্রোফাইলে নসরাতের স্বামী হিসেবে নিখিল জৈনের নাম উল্লেখ করা রয়েছে। তবে কয়েকদিন আগে নুসরাত দাবি করেন তিনি বিবাহিত নন। যা নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়। সেই বিতর্ক রাজনৈতিক আঙিনাতেও ছড়িয়ে পড়ে। এই আবহে চিঠিতে নুসরাতের লোকসভার প্রোফাইল জুড়ে দিয়ে সংঙ্ঘমিত্রা মৌর্য লোকসভার স্পিকারকে লেখেন, ‘শপথগ্রহণের সময় নিজের নাম নুসরত জাহান রুহি জৈন বলে উল্লেখ করেছিলেন তৃণমূল সাংসদ। তবে কয়েকদিন আগে নিজের বৈবাহিক জীবন নিয়ে যে মন্তব্য তিনি সংবাদমাধ্যমে করেছেন তার সঙ্গে প্রোফাইলের তথ্য মিলছে না।’

নিখিল জৈনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল নাকি তিনি লিভ-ইন করেছিলেন? ঠিক কোন সম্পর্কে ছিলেন নুসরাত জাহান? অভিনেতা যশ দাশগুপ্তই বা তার কে হন? কয়েক মাস আগে রাজস্থানে কী করছিলেন তারা? নুসরাতের গর্ভে বেড়ে ওঠা সন্তানের বাবাই বা কে? আপাতত এসব প্রশ্নই ‘ট্রেন্ডিং’।

এই আবহে বিজেপি সাংসদের দাবি, ব্যক্তিগত জীবনে নুসরাত কী করছেন, তা নিয়ে কেউ নাক গলাচ্ছে না। তবে বৈবাহিক জীবন সম্পর্কে তার সাম্প্রতিক মন্তব্য ইঙ্গিত করছে যে, লোকসভায় তিনি ভুয়া তথ্য পেশ করেছিলেন। এটা অনৈতিক ও বেআইনি। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস