ভারত থেকে শিগগিরই তাড়ানো হবে রোহিঙ্গাদের

মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভারতে কোনো জায়গা নেই। কোনো রকম রাখঢাক না করে এ কথা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহ। জিতেন্দ্র বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে জম্মুতে আশ্রয় নিয়েছেন বহু রোহিঙ্গা। কিন্তু তাদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে না। বরং ঝাড়াই-বাছাই করে ফেরত পাঠানোর কাজ শুরু হবে শিগগিরই।

গতকাল শুক্রবার শ্রীনগরে সরকারি কর্মীদের নিয়ে আয়োজিত তিনদিন ব্যাপী একটি অনুষ্ঠানে সংশোধিত নাগরকিত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে আলোচনা চলা অবস্থায় ওই মন্তব্য করেন জিতেন্দ্র সিংহ। তিনি বলেন, লোকসভায় বিল পাস হয়ে যাওয়ার দিন থেকেই জম্মু-কাশ্মীরে সিএএ চালু হয়ে গেছে। এ নিয়ে কোনো যদি, কিন্তুর ব্যাপার নেই। এবার রোহিঙ্গাদের নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে সরকার।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সে দেশের সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধদের নিপীড়নের শিকার হয়েই পালিয়ে গেছেন রোহিঙ্গা মুসলিমরা। তাদের একটি বড় অংশ বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছেন। ফাক ফোকর গলে ভারতেও ঢুকে পড়েছেন কিছু রোহিঙ্গা। পশ্চিমবঙ্গ, বিহার পেরিয়ে তাদের একটা অংশ জম্মুতে আশ্রয় নিয়েছেন বলেও দাবি করেন জিতেন্দ্র সিংহ।

তিনি আরো দাবি করেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে শুধু পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তানে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টান, শিখ এবং পার্সিদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা আছে। মিয়ানমার বা রোহিঙ্গাদের কোনো উল্লেখ নেই তাতে। তাই তাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রশ্ন ওঠে না।

জিতেন্দ্র আরো বলেন, রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনা চলছে। তাদের একটি তালিকা তৈরি করা হবে। প্রয়োজনে তৈরি করা হবে বায়োমেট্রিক পরিচয়পত্রও। কারণ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে রোহিঙ্গাদর কোনো সুবিধা দেওয়ার কথা বলা নেই। প্রতিবেশি তিন দেশে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার যে ছয়টি সম্প্রদায়কে নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে, রোহিঙ্গারা তার মধ্যে পড়ে না।