ভারতে গর্ভপাতের উর্ধ্বসীমা বাড়ছে

Social Share

ভারতে গর্ভপাতের উর্ধ্বসীমা বাড়িয়ে দিয়ে ২৪ সপ্তাহ করার সুপারিশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। আগামী বাজেট অধিবেশনে ভারতের লোকসভায় এই বিল উপস্থাপন করা হবে।

আজ বুধবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর এ কথা জানিয়েছেন। তার কথায়, দীর্ঘদিন ধরে গর্ভপাতের সময়সীমা বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে আসছেন নারীরা। নারীদের পাশাপাশি বিশেষজ্ঞরাও এই উর্ধ্বসীমা বৃদ্ধির পরামর্শ দিয়েছিলেন। সেই পরামর্শ মেনেই নতুন বিল তৈরি করা হয়েছে।

বর্তমানে ভারতে কেউ গর্ভধারণের ২০ সপ্তাহের মধ্যে গর্ভপাত করাতে পারেন। তার পরেও কেউ গর্ভপাত করলে আইনের আওতায় আসতে হবে।

সেই সীমা বাড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিল কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। ফলে অবৈধ গর্ভপাত, প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনা কমবে বলেই মনে করা হচ্ছে। মাস চারেক আগে গর্ভপাতের সময়সীমা বাড়ানোর আবেদন জানিয়ে সুপ্রিম বকোর্টে একটি আবেদন জমা পড়ে। আবেদনকারী গর্ভপাতের উর্ধ্বসীমা ২০ সপ্তাহ থেকে বাড়িয়ে ২৬ সপ্তাহ করার দাবি জানিয়েছিলেন।

সেই সময় এ নিয়ে বিবেচনা করার কথা সুপ্রিম কোর্টে জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এরপর নতুন আইনের খসড়া তৈরি করা হয়। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, গর্ভধারণের প্রথম পাঁচ মাস গোটা পরিস্থিতি বুঝতেই নারীদের কেটে যায়। তারপর তারা আদালতের দ্বারস্থ হন। ফলে জরুরী অবস্থা হলেও গর্ভপাত করা সম্ভব হয় না।

গর্ভধারণের পর চার মাস পর্যন্ত গর্ভপাত করা সংবিধান সম্মত। এ প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্র জানিয়েছিল, নাগরিকদের জীবন ও সন্তানকে সুরক্ষিত রাখা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। একাধিক সমীক্ষায় দেখা গেছে, গর্ভধারণের ২০ সপ্তাহে ভ্রুণের শারীরিক অক্ষমতা বা অসুস্থতা ধরা পড়ে। ফলে সেই সময় চাইলেও অন্তঃসত্ত্বারা গর্ভপাত করতে পারেন না। তাই এই সীমা বাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে।