ভাঙ্গায় মাদক ব্যবসায়ীর পেট থেকে একহাজার পিচ ইয়াবা উদ্ধার

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

72
মাদক ব্যবসায়ীর
Social Share

এবার পুলিশের হাতে আটক এক মাদক ব্যবসায়ীর পেট থেকে একহাজার পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে ফরিদপুরের ভাঙ্গায়। ভাঙ্গা উপজেলার মালিগ্রাম বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওসি (তদন্ত) বিকাশ মন্ডল ও এসআই আজাদের নেতৃত্বে তিন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করার পর একজনের পেট থেকে উদ্ধার করা হয় ইয়াবা।    

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, কক্সবাজার উখিয়া থানার বজেন্দ্র দাসের ছেলে ছোটন দাস (৩২), একই এলাকার আহমেদ শেখের ছেলে আমির হোসেন (২০) ও ভাঙ্গা উপজেলার আলগী ইউনিয়নের বরদিয়া গ্রামের মকবুল আহমদের ছেলে নুর মোহাম্মাদ (১৮)।

পুলিশের জিজ্ঞেসাবাদে ছোটন দাস জানায় তাদের কাছে এক হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট রয়েছে। পরে তিনজনকে এক্সরে করার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে তাদের একজনের পেটে ক্যাপসুল শনাক্ত হয়। এরপর ওষুধ সেবনের পর পায়ুপথে একে একে ২৬টি ক্যাপসুল বের হয়ে আসে।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা থানার এসআই আজাদ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মালিগ্রাম বাসস্ট্যান্ড এলাকার দক্ষিন পাশের লেনের মহাসড়কের উপর চেকপোস্টে চলাকালে যাত্রীবাহী একটি সিএনজিতে থাকা তিন যুবককের গতিবিধি সন্দেহ হওয়ায় তাদের আটক করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদকালে পেটের ভিতর ইয়াবার কথা স্বীকার করলে হাসপাতালে গিয়ে এক্সরে করার পর পেটের ক্যাপসুলের মধ্যে রাখা এক হাজার পিস ইয়াবা বেড়িয়ে আসে। যাহার মূল্য অনুমান প্রায় তিন লক্ষ বারো হাজার টাকা বলে জানান।
 
ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মহাসিন বলেন, পুলিশ তিন যুবককে এক্সরে করতে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। তিনজনকে প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হলে তাদের একজনের পেট থেকে একে একে বের হয়ে আসে ২৬টি ক্যাপসুল।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম রেজা বলেন, ভাঙ্গা থানা পুলিশ মালিগ্রাম বাসস্ট্যান্ড এক্সপ্রেস হাইওয়ের উপর থেকে সন্দেহবশত তিনজনকে আটক করে। তিনজনের এক্সরে করে একজনের পেটের ভিতরে একহাজার পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে মামলা হয়েছে বলে তিনি জানান।

………………………………………………………………………………………….

এ বিষয়ে ভাঙ্গা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম রেজা বলেন, ভাঙ্গা থানা পুলিশ মালিগ্রাম বাসস্ট্যান্ড এক্সপ্রেস হাইওয়ের উপর থেকে সন্দেহবশত মাদক ব্যবসায়ীর তিনজনকে আটক করে। তিনজনের এক্সরে করে একজনের পেটের ভিতরে একহাজার পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে মামলা হয়েছে বলে তিনি জানান।