নির্র্মাণাধীন বাসায় বোমা সাদৃশ্য বস্তু রেখে চিঠি দিয়ে চাঁদা দাবি

84
বোমা সাদৃশ্য বস্তু
Social Share

কাজল আর্য, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের গোপালপুরে একটি বাসায় বোমা সাদৃশ্য বস্তু রেখে চিঠি দিয়ে লাখ টাকা চাঁদা দাবী করা হয়েছে। বাসার মালিকের ছেলে মেয়েকে গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয় ওই চিঠিতে। পরে পুলিশকে জানালে তারা বাড়ির চারপাশ ঘিরে রেখেছে। বুধবার সকালে গোপালপুর পৌরসভার নন্দনপুর বাজার এলাকায় রাজ্জাক মিয়া লিটুর বাসায় এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা যায়, আব্দুর রাজ্জাক মিয়া লিটু নতুন ভবন নির্মাণ করছেন। তার পাশেই একটি টিনের ঘরে তার মা রেহেনা পারভীন বসবাস করেন। সকালের দিকে রেহেনা পারভীন নির্মাণাধীণ বাসার সামনে গিয়ে রিমোট কন্ট্রোল লাল বোমা সদৃশ্য বস্তু দেখতে পান। পরে তাদের থাকার ঘরের সামনে দুইটি চিঠি দেখতে পায়। পাওয়া চিঠিতে লেখা তার ছেলে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন। এতে এক লাখ টাকা চাঁদা ধার্য করা হয়েছে। টাকা না দিলে এবং বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করলে টাইম বোমাটি রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে বিষ্ফোরণ ও বাসার মালিকের ছেলেকে গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়। চিঠিতে জানানো হয়, রেখে যাওয়া বোমা দিয়ে দুইটি বাস গাড়ি ধ্বংস করার ক্ষমতা রয়েছে। নির্দিষ্ট জায়গা টাকা দিয়ে না আসলে রাত ১২টার পর বিস্ফোরণ হবে।

বাসার মালিকের আত্মীয় রেজাউল করিম বলেন, এখবর পেয়ে বিষয়টি পৌর মেয়রকে অবহিত করা হয়। পরে পুলিশ এসে বাড়িতে ঘিরে রেখেছে। কোন কিশোর গ্যাং অথবা মাদক সেবীরা বখাটেরা এ কাজ করতে পারে।

গোপালপুর থানার ওসি (তদন্ত) মামুন ভুইয়া বিকেলে বলেন, খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে বাড়িটি ঘিওে রাখা হয়েছে। বোমা না অন্য কিছু কিছুই বলা যাচ্ছে না। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। ঢাকা থেকে বোম ডিসপোসাল টিম আসার পর কাজ শুরু হবে।

বাসার মালিকের আত্মীয় রেজাউল করিম বলেন, এখবর পেয়ে বিষয়টি পৌর মেয়রকে অবহিত করা হয়। পরে পুলিশ এসে বাড়িতে ঘিরে রেখেছে। কোন কিশোর গ্যাং অথবা মাদক সেবীরা বখাটেরা এ কাজ করতে পারে। বোমা সাদৃশ্য বস্তু

গোপালপুর থানার ওসি (তদন্ত) মামুন ভুইয়া বিকেলে বলেন, খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে বাড়িটি ঘিওে রাখা হয়েছে। বোমা না অন্য কিছু কিছুই বলা যাচ্ছে না। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। ঢাকা থেকে বোম ডিসপোসাল টিম আসার পর কাজ শুরু হবে।