বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি করায় তিন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে জরিমানা

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আইন বিভাগে প্রতি সেমিস্টারে ৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি করায় তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে ৩০ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

যে তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়কে জরিমানা করা হয়েছে তা হলো- ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, সাউথ-ইস্ট ইউনিভার্সিটি ও ইসলামিয়া ইউনিভার্সিটি। প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়কে ১০ লাখ টাকা করে বারডেম হাসপাতালের লিভার ট্রান্সপ্লান্ট ইউনিট ও কিডনি ফাউন্ডেশনে জমা দিয়ে জমার রশিদ আপিল বিভাগে দাখিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই টাকা জমা দেওয়ার শর্তে আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ওই তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিবন্ধন কার্ড প্রদান ও ফরম পূরণ করার সুযোগ দিতে বলা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ আজ রবিবার এ আদেশ দেন। হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে বার কাউন্সিলের করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষে এ আদেশ দেওয়া হয়। বার কাউন্সিলের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তিনটির পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিন ও শাহ মঞ্জুরুল হক।

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করার অভিযোগে ১১টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের এনরোল্ডমেন্ট (আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তি) পরীক্ষায় নিবন্ধন কার্ড না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বার কাউন্সিল। এই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি ও ইসলামিয়া ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এই রিট আবেদনে হাইকোর্ট গতবছর ১৭ সেপ্টেম্বর ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ২২ সেপ্টেম্বর ইসলামিয়া ও ২৫ সেপ্টেম্বর সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের নিবন্ধন কার্ড দিতে বার কাউন্সিলকে নির্দেশ দেন।

হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করে বার কাউন্সিল। বার কাউন্সিলের আবেদন গতবছর ২৭ অক্টোবর খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ। এ অবস্থায় বার কাউন্সিল রিভিউ আবেদন করে। রবিবার এ আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আদালত আবেদন তিনটি নিষ্পত্তি করে আদেশ দেন।