বিশ্বে প্রথম, সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিকরণের পথে হাঁটছে ভারতীয় রেল

Social Share

নয়াদিল্লি: কয়লা ও ডিজেল নির্ভরতা কমিয়ে রেলের সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিকরণের পথে হাঁটছে ভারতীয় রেল। বুধবার সন্ধ্যায় রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল জানিয়েছেন, আগামী এক দশকে কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে শূন্যতে নিয়ে আসা হবে। টুইটে রেলমন্ত্রী লিখেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের নেট-জিরো রেলওয়ে হবে। ভারতীয় রেলের কার্বন নিঃসরণ শূন্য হবে।

রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল আরও জানান, ভারতীয় রেল প্রতি বছর ৮০০ কোটি যাত্রী ও ১২০ কোটি টন পণ্য পরিবহণ করে। পৃথিবীতে প্রথম এই মাপের রেলওয়ে সম্পূর্ণ ভাবে ‘গ্রিন’ হয়ে উঠবে।

উল্লেখ্য, বিশ্ব রেল পরিষেবায় আমেরিকা, রাশিয়া এবং চিনের পরেই ভারতের স্থান। বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম রেল নেটওয়র্ক ভারতের। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ভারতে সব জোন মিলিয়ে রেল ট্র্যাক রয়েছে প্রায় ৬৭,৩৬৮ কিলোমিটার। সবমিলিয়ে ৭,৩০০টি স্টেশন রয়েছে।

নীতি আয়োগের রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতীয় রেলের কার্বন নির্গমন ২০১৪ সালে ছিল ৬.৮৪ মিলিয়ন টন। ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে রেলের সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিকরণ করা হলে ভারতীয় রেল হয়ে উঠবে ১০০ শতাংশ ডিজেল-ফ্রি। গোটা রেল নেটওয়র্কই চলবে ইলেকট্রিকে। ভারতীয় রেল আগেই  কয়লার ব্যবহার বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল জানান, ভারতীয় রেল সব কোল প্ল্যান্ট বন্ধ করে দেবে। ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ১০০ শতাংশ বৈদ্যুতিকরণের কাজ শেষ হলে ট্রেনের গড় গতি ১০ থেকে ১৫ শতাংশ বাড়বে।