বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি হলেন মুকুল রায়

Social Share

কলকাতা: ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের আগে বিজেপিতে পদোন্নতি হল মুকুল রায়ের। সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি করা হলো তাঁকে। শনিবার প্রকাশিত হল কেন্দ্রীয় বিজেপির নতুন পদাধিকারীদের তালিকা। সেই তালিকায় মুকুল ছাড়াও রয়েছেন দার্জিলিংয়ের সাংসদ রাজু বিস্ত এবং অনুপম হাজরার নামও। রাজু বিস্তকে করা হয়েছে বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র। পাশাপাশি, সর্বভারতীয় সম্পাদক করা হয়েছে বোলপুরের প্রাক্তন সাংসদ  অনুপম হাজরাকে।

মুকুলের সঙ্গে সহ সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন ছত্তিসগড়ের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমন সিং, রাজস্থানের প্রাপ্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া, ওড়িশার জয় পান্ডা। উল্লেখ্য, এতদিন পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন মুকুল রায়। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন তিনি।

২০১৮ সালে বাংলার পঞ্চায়েত ভোট এবং ২০২৯ সালের লোকসভা ভোটের দায়িত্বে ছিলেন মুকুল রায়। তৃণমূল থেকে বিজেপিতে টেনে নিয়েছিলেন অর্জুন সিং, নিশীথ প্রামাণিক, সৌমিত্র খাঁ, অনুপম হাজরা, সৌমিত্র খাঁ ও খগেন মূর্মূদের মতো তাবড়-তাবড় নেতাদের। ২০২৯ সালের লোকসভা ভোটে বাংলায় ১৮টি আসনে জয়লাভ করে বিজেপি। অনুপম হাজরা ছাড়া সকলেই জয়লাভ করেন।

পঞ্চায়েত ভোট এবং লোকসভা ভোটে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলালেও কেন্দ্র বা রাজ্য সংগঠনের কোনও গুরুত্বপূর্ণ পদ পাননি তিনি। তাই মুকুল রায়ের পদ পাওয়া নিয়ে দড়ি টানাটানি অব্যাহত ছিল। সম্প্রতি বিজেপির নবগঠিত রাজ্য কমিটিতে ঠাঁই হয়নি তাঁর। এর পরই বিদ্রোহ করেন তিনি। দিল্লিতে দলের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ছেড়ে কলকাতা ফিরে আসেন। কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল, বিজেপির অন্দরে মুকুল রায়ের সঙ্গে বনিবনা হচ্ছে না দিলীপ ঘোষের। এমনকি শোনা যায় ফের তৃণমূলে ফিরছেন তিনি।

তার পরই মুকুল রায়ের সঙ্গে আলোচনায় বসেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা। শোনা যায়, মুকুল রায়কে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করা হতে পারে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাঁকে বিজেপির গঠনকাঠামোর দ্বিতীয় সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক পদ সহ সভাপতি করলো বিজেপি।