বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ বন্ধের আহ্বান অশ্বিন, দিয়া মির্জার

পরিবেশবাদী এবং বিশেষজ্ঞদের আপত্তি উপেক্ষা করে আগামীকাল রবিবার দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ-ভারত টি-টোয়েন্টি সিরিজ। কিন্তু ভারতের রাজধানী এখন বায়ু দূষণে আতঙ্কিত। মারাত্মক দূষণের জেরে দিল্লিতে ইতিমধ্যেই জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। এর মাঝে ক্রিকেটের মতো পরিশ্রমের খেলা কীভাবে আয়োজন করা হচ্ছে, তা বুঝে উঠতে পারছেন না অনেকেই।  বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন আর বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা।

শুক্রবার দিল্লির বেশ কয়েকটি স্থানে বাতাসের গুণমান সূচক ৫০০ ছাড়িয়েছে। অনের আঞ্চলের দূষণ মাত্রা এরই কাছাকাছি। যা স্বাস্থ্যে পক্ষে অত্যন্ত বিপদের। দিল্লির এই পরিস্থিতিকে ‘ইমার্জেন্সি’ হিসাবে ব্যাখ্যা করেছেন ভারতের তারকা স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। শনিবার সকালে টুইটারে তিনি লিখেন, ‘দিল্লির বাতাস রীতিমতো ভয়ঙ্কর। যে অক্সিজেন আমরা গ্রহণ করি, সেটা মানুষের বেঁচে থাকার জন্য ন্যূনতম প্রয়োজন। ইতিমধ্যেই এখানে জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে।’

দিল্লিতে ম্যাচ করা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা। তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘বাতাসের গুণমান সূচক ৪০০ পেরিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও বিসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ আয়োজন করা হবে। এটা রীতিমতো নির্বোধের মতো সিদ্ধান্ত। এই বিপদ উপেক্ষা করে দূষণের মুখে নিজেদের ঠেলে দেওয়ার ফলে সমাধানের রাস্তা ক্রমশ কঠিন হচ্ছে।’

গত দুইদিন ধরেই বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা মাস্ক পরে অনুশীলন করায় বিতর্ক আরও বেড়েছে। অন্যদিকে এত অল্প সময়ের মধ্যে বিকল্প ভেন্যুতে ম্যাচ অনুষ্ঠিত করা সম্ভব নয়ে বলেই জানিয়ে দিয়েছে বিসিসিআই। ঠিক দুই বছর আগে ভারত-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের সময়ও একই রকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। তখনও ভারতের ক্রিকেটাররা জানিয়েছিলেন, তাদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না। কারণ তারা এমন পরিবেশে অভ্যস্ত। রবিবার এই বিষাক্ত বাতাস যে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হতে যাচ্ছে তা আর বলে দিতে হবে না।